প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাপ অপরাধ করলে পুত্রকে দায়ী করা যায় না : ড. জাফরুল্লাহ

মারুফুল আলম : গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ড. জাফরুল্লাহ বলেছেন, বাপ অপরাধ করলে ছেলেকে দোষী করা যায় না। আমাদেরকে ক্ষমা করা শিখতে হবে। আমাদের নির্বাচনী ইশতেহারের প্রথমদিকেই কথাটি আছে। বৃহস্পতিবার ডিবিসি নিউজ’র টকশোতে নির্বাচনে যুদ্ধাপরাধী দলের সংশ্লিষ্টা প্রশ্নে তিনি আরো বলেন, আমরা সামগ্রিকভাবে চিন্তা করতে চাই। এখনো ৮০ হাজার লোক জেলে আছে এবং জেলে থাকা অবস্থায়ও গায়েবী মামলা হচ্ছে।

ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বলেন, অপরাধীর বিচারহিনতার যে সংস্কৃতি, সেটাকে যদি ধরে রাখি, তাহলে আমরা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মকে এটাই কি শেখাচ্ছিনা যে, হত্যা করো, ক্ষমার ব্যবস্থা আছে? ক্ষমা করবার যদি এটিই নিদর্শন হয় তাহলে এ কথার সাথে একমত নই আমি। আর এটি কেমন কথা যে, তারা নাগরিক হওয়াতে নির্বাচন থেকে সরানো যাচ্ছে না। ঋণখেলাপীরাও তো এদেশের নাগরিক। তাই বলে কি তাদেরকে আমরা নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন দেবো? একেবারে ঢালাওভাবে ২২/২৫টি মনোনয়ন দিয়ে যদি বলা হয়, এরা কেউ জামায়াত করে না এবং এরা সবাই ধানের শীষ হয়ে গেছে। ড. কামাল হোসেনের মত ব্যক্তির কাছ থেকে যখন এধরণের বক্তব্য শুনি তখন খুব কষ্ট লাগে।

ড. জাফরুল্লাহ বলেন, জামায়াতকে আমরা বিন্দুমাত্র সমর্থন করি না। পরিষ্কারভাবে বলতে চাই যে, মানবতাবিরোধীদের বিরুদ্ধে যারাই কাজ করেছেন তাদেরকে সমর্থন করি এবং সরকারকেও ঐ কারণে সমর্থন করি। ইসলামিক দলগুলো এখনো অনেক কারণে বেঁচে আছে। নির্বাচনে জয়ের জন্য অনেক কিছুই হয়ে থাকে যা তাদেরকে সমর্থন করার মতোই লাগে। কিন্তু বাস্তবে সেটি সত্য নয়। আমরা অসাম্প্রদায়িকতার কথা বলি কিন্তু মাদ্রাসাকে ৪ হাজার কোটি টাকা দিই, হেফাজতের সঙ্গে হাত মিলিয়ে পরীক্ষা পেছাই আর মাদার অব কাওমী হই। মূলত ইলেকশনে জয়ের জন্যই এসব করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত