প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আওয়ামী লীগ-বিএনপি কি জনগণকে সত্যিই কেয়ার করে?

কামরুল হাসান মামুন : বড় দুটি দল বিএনপি এবং আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় থাকে তখন সত্যিই কি জনগণকে কেয়ার করে? সাপ যেমন খোলস পাল্টায় কিন্তু তার চরিত্র পাল্টায়, না ঠিক তেমনি নির্বাচন আসলেও এই দলগুলোর খোলস পাল্টায় চরিত্র পাল্টায় না।

বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিলো তখন সত্যিই যদি জনগণকে কেয়ার করতো তাহলে তারা সুশাসন দিতো আর হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট, গ্রেনেড হামলা, জঙ্গিবাদ লালন ইত্যাদিসহ এমন কি খারাপ কাজ আছে যা তারা করেনি? জনগণকে কেয়ার করেনি বলেই পুরো ৫ বছর জুড়ে ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং করে কীভাবে ক্ষমতায় আশা যায় সেই কর্মে মগ্ন ছিলো। মগ্ন যে ছিলো তার একটি বড় উদাহরণ হলো বিচারপতিদের বয়স বাড়ানোর চেষ্টা।

গত ১০টি বছর যে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিলো একবারও কি মনে হয়েছে তারা জনগণকে কেয়ার করেছে? কেয়ার যদি করতো তাহলে গুম, খুন, লুটপাট ইত্যাদি করতো না। কেয়ার যদি করতো তাহলে কোটা আন্দোলনকে এইভাবে হ্যান্ডেল করতো না। কেয়ার যদি করতো তাহলে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনকে ওই ভাবে হ্যান্ডেল করতো না। তারা কি জানে এইসব আন্দোলনকে হেলমেট বাহিনী আর হাতুড়ি বাহিনী দিয়ে দমন করতে গিয়ে কতো হাজার হাজার ফ্লোটিং ভোটারের ভোট হারিয়েছে? কেয়ার যদি করতো তাহলে শিক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতো।

সত্যিকারের উন্নয়নের জন্য যেখানে জিডিপির ৪ শতাংশের ওপরে শিক্ষায় বরাদ্দ দেওয়ার প্রমাণিত শর্ত আছে সেখানে আমাদের সরকারগুলো সবসময় ২ শতাংশের আশেপাশে দিয়েছেন। এই ব্যাপরে তাদের এত্তো মিল! আর এই সরকার তো আইসিটি খাতকে সাথে ট্যাগ করে বরাদ্দ দিয়েছে। এটা ছিলো ধাপ্পাবাজি। শিক্ষায় জিডিপির ২ শতাংশ বরাদ্দ দিয়ে আজ পর্যন্ত পৃথিবীর কোনো দেশ উন্নত হয়েছে? আমাদের দেশের জনসংখ্যার কথা চিন্তা করলে আমাদের উচিত জিডিপির ৬ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়া। কারণ মানবসম্পদই আমাদের একমাত্র সম্পদ! শিক্ষায় জিডিপির ২ শতাংশ বরাদ্দ দিয়ে মানুষ সৃষ্টি করা যায় না বরং জানোয়ার সৃষ্টি করা যায়। এর প্রমাণ দেশ আজ চোর, লুটেরা, দুর্নীতিবাজ, ভেজালকারী নামক জানোয়ারে সয়লাব। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত