প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এমএনপি সেবায় সিমে কর মওকুফের বিরোধী রাজস্ব বোর্ড

যুগান্তর : মোবাইল সিমে এমএনপি সেবায় কর মওকুফের বিরোধিতা করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। নম্বর বদল না করে অন্য অপারেটরের সেবা নেয়ার সুবিধা এমএনপির ক্ষেত্রে সিমের কর হ্রাস হলে বছরে ৫০ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকির সুযোগ তৈরি হতে পারে বলে এনবিআরের আশঙ্কা।

সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়কে দেয়া এক চিঠিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এ কথা জানিয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, কর ফাঁকি প্রতিরোধে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনআরবি) ও বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) জানা দরকার যে এমএনপি সেবা ব্যবহার করে গ্রাহক কোন সিম কার্ডটি পরিবর্তন করেছে।

এনআরবি জানিয়েছে, এমএনপি সেবায় কর অব্যাহতি না দিয়ে ৫০ টাকা ছাড় দেয়া যেতে পারে।

অপারেটরদের মধ্যে প্রতিযোগিতা বাড়াতে গত অক্টোবরে প্রথমবারের মতো মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি বা এমএনপি সেবা চালু করে সরকার।

এর পরেই নতুন এই সার্ভিসটির সেবা খরচ ১৫৭.৫০ টাকা থেকে কমিয়ে ৫৭.৫০ টাকার করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়াও এমএনপি গ্রাহকদের জন্য সিম প্রতিস্থাপন কর ১০০ টাকা মওকুফ করার পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। যদিও তা এখনো বাস্তবায়ন হয়নি।

কর্মকর্তারা বলেন, এমএনপি সেবামূল্য কমানোর আগে ভ্যাট মওকুফে একটি সংবিধিবদ্ধ নিয়ন্ত্রক আদেশ বা এসআরও জারি করবে এনবিআর।

তারা আরও বলেন, এ বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে একটি খসড়া এসআরও পাঠিয়েছে এনবিআর।

রাজস্ব বোর্ডের প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ভারত ও পাকিস্তানের মতো প্রতিবেশী দেশগুলোতে এমএনপি সেবার ওপর কোনো খরচ নেই। কাজেই এটা ধরে নেয়া যায় যে, সেসব দেশে সব গ্রাহকরা এমএনপি সেবা নিতে পারবেন না। এটা কেবল তাদের পছন্দের ওপর নির্ভর করে।

অনেক দেশে গ্রাহকদের মধ্যে ৬.০ থেকে ১০ শতাংশ লোক এ সুবিধা পেয়ে থাকেন।

ভ্যাট ফাঁকি নিয়ন্ত্রণে সিম প্রতিস্থাপনের সত্যতা যাচাইয়ের সুযোগ থাকাও দরকার বলে প্রস্তাবে বলা হয়েছে।

কর্মকর্তাদের মতে, কর অব্যাহতির পর টেলিকম অপারেটর ও এনবিআরের মধ্যে করসংশ্লিষ্ট বিতর্ক আরও খারাপের দিকে যেতে পারে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত