প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রওশন এরশাদ কোথায়?

বাংলাদেশ জার্নাল : ইতোমধ্যেই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছে আওয়ামী লীগ ও ঐক্যফ্রন্ট। তবে মাঠে দেখা নেই জাতীয় পার্টির। দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ সিঙ্গাপুরে। দেখা নেই দলের কো চেয়ারম্যান রওশন এরশাদেরও। বুধবার রাজধানীর ভিক্টোরিয়া পার্ক থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছেন ঢাকা-৬ আসনের মহাজোট মনোনীত জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য প্রার্থী অ্যাডভোকেট কাজী ফিরোজ রশীদ। এ নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে নেতাকর্মীদের মধ্যে চেয়ারমান নেই। কো চেয়ারম্যান দেশে থেকেও সরব নন। নিবাচনীর প্রচারণার উদ্বোধন করেননি মহাসচিবও। ‘তাহলে কি ভাঙনের মুখে জাপা’ এ নিয়ে গুঞ্জন চলছে নেতাকর্মীদের মধ্যে।

এবার রওশন ময়মনসিংহ-৪ (সদর) আসন থেকে মহাজোটের একক প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। জাতীয় পার্টির সঙ্গে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের আসন বন্টন সমঝোতা না হওয়ায় বেকায়দায় পড়েছেন বেগম রওশন এরশাদ। শেষ মুহূর্তে জাতীয় পার্টির সঙ্গে আওয়ামী লীগ যে আচরণ করেছে তা নিয়ে চরম অসন্তুষ্ট বেগম রওশন এরশাদ।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বেগম রওশন এরশাদের হাতে জাপার একচ্ছত্র আধিপত্য ছিল। কিন্তু এবার অবস্থা বদলেছে। পার্টির নয়া মহাসচিব সরকারের প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গাকে দিয়ে আসন বন্টন কার্যক্রম চূড়ান্ত করেছে। আর এসব ঘটনা নিয়ে অভিমান এবং মনের দুঃখে বেগম রওশন এরশাদ নিজ নির্বাচনী এলাকা ময়মনসিংহে যাচ্ছেন না।

এর মধ্যেই বুধবার স্থানীয় যুবলীগের একটি বিশাল মিছিল নিয়ে মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটায় এমপি প্রার্থী কাজী ফিরোজ ভিক্টোরিয়া পার্কে আসেন। যোগ দেন আওয়ামী লীগসহ মহাজোটের স্থানীয় নেতাকর্মীরা। কাজী ফিরোজের শোডাউনের কারণে এসময় আশে পাশে যানজটের সৃষ্টি হয়। নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় ভিক্টোরিয়া পার্কে। এসময় এমপি প্রার্থী কাজী ফিরোজ বলেন, দেশের উন্নয়নের স্বার্থে লাঙ্গল-নৌকা আজ এক হয়েছে। এই দুই প্রতীক এক সাথে থাকলে কোনো অশুভশক্তি দেশ ও জাতির ক্ষতি করতে পারবেনা।’ লাঙলে ভোট দিয়ে শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থীকে জয়যুক্ত করার আহ্বান জানান কাজী ফিরোজ রশীদ।

বক্তব্য রাখেন নগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফী, যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী সারোয়ার বাবু, গাজী আবু সাঈদ, হেদায়াতুল ইসলাম স্বপন, হাজী ফারুক, তরুন বসু প্রমুখ।

নির্বাচনী সভা শেষে ভিক্টোরীয়া পার্ক থেকে নির্বাচনী মিছিল বের করা হয়। পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়ার গাড়ীতে চড়ে মিছিলের নেতৃত্ব দেন মহাজোটের এই প্রার্থী। মিছিলটি জজকোর্ট, রায়সাহেব বাজার, ধোলাইখাল, ওয়ারী, দয়াগঞ্জ হয়ে টিকাটুলীতে গিয়ে শেষ হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত