Skip to main content

আওয়ামী লীগের কর্মীরাই বেশি হামলার শিকার হচ্ছে: ইসিতে এইচটি ইমাম

সাইদ রিপন: প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা ও আওয়ামী লীগের নির্বাচনী পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান এইচটি ইমাম বলেছেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা ও হামলার খবর পাচ্ছি আমরা । যেসব হামলা হচ্ছে তার বেশিরভাগই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হচ্ছে। ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগের দুইজন কর্মী হত্যা করা হয়েছে। বেছে বেছে আক্রমন করা হচ্ছে এটা মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়।\\ বুধবার আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে সাক্ষাত শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের গাড়ি বহরে হামলার কথা বলা হয়েছে। আমার এ বিষয়ে তথ্য নিয়েছি। তিনি সেখানে গেছেন পুলিশকে কোন খবরও দেননি। বিএনপির পুরনো পল্টন ও গুলশান অফিসে মনোনয়ন বাণিজ্য নিয়ে যে বিষয়টি তুমুল তোলপাড়, যা ব্যাপকভাবে আলোচিতও হয়েছে। এটি মির্জা ফখরুল ইসলামের এলাকায়ও হয়েছে। এখানে তার দলের লোকেরাই নিজেদের মধ্যে মারামারি করেছেন। সেখানে আওয়ামী লীগের কেউ ছিলো না। অথচ বিশেষ একটি পত্রিকা এটাকে হেডলাইন করেছে। আমি ওই পত্রিকার সম্পাদককে ফোন করেছিলাম। তিনি বলেছেন ভুল হয়ে গেছে। ভুল একরম হওয়া উচিত নয়। এত বড় খবর যাচাই বছাই করে দেয়া উচিত। মিডিয়ার প্রতি আমাদের আহ্বান থাকবে এ ধরনের বিষয়ে যাচাই বাছাই করে এবং সুন্দরভাবে পরিবেশন করবেন যাতে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় থাকে।\ এইচটি ইমাম বলেন, কমিশনকে বলেছি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আপনাদের কর্তৃত্বাধীন আপনারা তাদের ব্যবহার করুন। যাতে করে এই ধরনের ঘটনা না ঘটে। নির্বাচনকে ঘিরে যেসব সহিংসতা হচ্ছে তার মূল আক্রমণ হচ্ছে আওয়ামী লীগের ওপর। তার বহি:প্রকাশ ঘটেছে দুইজন কর্মীর নিহতের ঘটনার মধ্য দিয়ে। এছাড়া অন্যান্য জায়গায়ও আমাদের নেতাকর্মী বা যাদের নৌকা প্রতীক দেয়া হয়েছে যেমন মাহী বি চৌধুরীর ওপর হামলা হয়েছে। কিন্তু এটা নিয়ে তো আপনার কথা বলেন না। তবে এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতা বলবো না, তবে তাদেরকে এখনই সতর্ক হতে হবে। তাদেরকে বলেছি, এসব বিষয়ে এখনই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিন। ঘটনার জন্য যারা চিহ্নিত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।\ \ সহিংসতা বন্ধে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা যথেষ্ট নিরপেক্ষ ও নির্মোহ। তারা আপ্রাণ চেষ্টা করছে। তারা এটাও বলেছেন বৃহত্তর দল হিসেবে আপনাদেরও দায়িত্ব আছে। আমরা বলেছি আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করেছি। কিন্তু আমরা যদি আক্রান্ত হই, তাহলে সেটা তো আপনাদের রক্ষা করতে হবে।