Skip to main content

মির্জা ফখরুলের গাড়ি বহরে হামলা হোঁচট যেন জখমে পরিণত না হয়

অজয় দাশগুপ্ত, অস্ট্রেলিয়া থেকে : নির্বাচনী প্রচার শুরু হতে না হতেই বড় ধরণের হোঁচট খেতে হলো জাতিকে। ঠাকুরগাঁয় নির্বাচনী প্রচারের শুরুতেই মির্জা ফখরুলের গাড়িবহরে হামলার খবর উদ্বিগ্ন হওয়ার বিষয় বৈকি। মিডিয়া কি বলছে? পুলিশ হামলার খবর নিশ্চিত করলেও কার গাড়িতে কে হামলা করেছে সে বিষয়ে কিছু বলতে পারেনি। সদর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে সদর উপজেলার বেগুনবাড়ি ইউনিয়নের দানারহাট এলাকায় আমরা দুই-তিনটা গাড়ি ভাঙচুর হওয়ার খবর পেয়েছি। তবে কার গাড়ি কে ভেঙেছে সেটা তদন্ত সাপেক্ষ বিষয়’।\\ এসব কথা সারমর্ম হীন। গৎবাঁধা। তবে আসল বিষয় হলো এই মুহূর্তে কাউকে দোষারোপ করার আগে বিএনপির উচিত নিজেদের ঘরের দিকে তাকানো। জানি কোনো রাজনৈতিক দলই তা করে না। এরা তো নয়ই। তারা বলবে বা বলে দিয়েছে এ ঘটনা র নেপথ্যে আছে প্রশাসন আর সমুখে আওয়ামী গু-ারা। দোষারোপের পুরোনো খেলা চলছে, চলবে। বলছিলাম ঘরের দিকে তাকাতে। কেন? সঙ্গীত তারকা মুনির খান থেকে মনি নামের এক ভদ্রমহিলার নামে যেসব কথা সামাজিক মিডিয়ায় চালু তার সিকিভাগ সত্য হলেও খবর আছে। যার প্রমাণ আমরা দেখেছি মনোনয়ন বাণিজ্যের বদলা নিতে আসা মারমুখি বিএনপি নেতাও কর্মীদের আচরণে। এ জায়গায়ও তারা হয়তো আওয়ামী লীগ বা তাদের বিরোধীদের কাঁধেই দায় চাপাবে। কিন্তু তাতে কি শাক দিয়ে মাছ ঢাকা সম্ভব? কারণ জনগণ আওয়ামী লীগের এতো প্রতাপ বা কথিত অত্যাচারের সময়ও বিএনপি কার্যালয়ে হামলা হতে দেখেনি। নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিলের সাথে সাথে এমন মারমুখি আচরণ কাদের দ্বারা এবং কেন সেটা তারা ভালো জানেন। বিএনপির কর্মীরা স্লোগান দিয়েছে : টাকা গেছে লন্ডনে/হামলা হবে পল্টনে। এর মাজেজা বুঝিয়ে বলার দরকার পড়ে না। তাই মনোনয়ন না পাওয়া বিরোধী আর দলের ভেতর অসন্তোষে গুমরে মরাদের নিয়েও ভাবা দরকার। এখন অবদি নির্বাচনের প্রচার ও বাকযুদ্ধ শুরু হয়নি। ফলে আওয়মাী লীগের নেতা সমর্থকরা শুরুতেই এমন কোনো কা- করবেন বলে মনে হয় না যাতে তাদের দলের সুনাম ও ভোট নষ্ট হয়।\ \ রাজনীতি বড় জটিল আর মন মেজাজ বিবেকহীন বিষয়। কে কাকে মারে কে কার লেসন করা বা লাভ করতে চায় বলা মুশকিল। নিজেরা কৌশলে করে নিজেদের ইমেজ বাড়ানোর এমন খেলা নতুন কিছু নয়। এটা মাথায় রাখা দরকার মির্জা ফখরুল বিএনপি নেতাদের ভেতর সবচাইতে মিতভাষী। তিনি ভদ্রলোক ও বটে। তার গাড়ীবহরে এর আগেও হামলার খবর ছিলো। যার কারণ এখনো জানা যায়নি বা প্রমাণ মেলেনি। বারবার তাকে টার্গেট করার ভেতর দলীয় ষড়যন্ত্র না ইমেজ বাড়ানো না সরকারি দলের সন্ত্রাস তা জানা এখন জরুরি। নির্বাচনী প্রচার নিরাপদ আর সুষ্ঠু হোক এটাই আমাদের চাওয়া।\ \ লেখক : কলামিস্ট ও বিশ্বিবদ্যালয় পরীক্ষক