প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অসুস্থতায় শিশু সাফায়েতের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি মাদকাসক্ত বাবার

মাসুদ আলম : রাজধানীর বাংলামোটরে সাফায়েত নামে আড়াই বছরের শিশুকে হত্যার অভিযোগে শিশুটির বাবা নুরুজ্জামান কাজলকে তিন দিনের রিমা- শেষে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। আজ সোমবার সকালে তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে পাঠানো হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে কাজল পুলিশকে জানিয়েছে যত্ন না নেওয়ায় অসুস্থ হয়ে মারা গেছে তার ছোট ছেলে সাফায়েত। ঘটনার পর থেকে কাজলের বাড়িটি তালাবদ্ধ রয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও শাহবাগ থানার এসআই চম্পক চক্রবর্তী বলেন, কাজল জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে তার স্ত্রী চলে যাওয়ার পর সন্তানদের ঠিকমত যত্ন নিতো না সে। এজন্য পুষ্ঠিহীনতা, জন্ডিস ও জ্বর সর্দিসহ নানা রোগে ভুগছিল সাফায়েত। তার জন্য মৃত্যু হয়েছে। শিশুটি হত্যা কথা স্বীকার করেনি কাজল। পুনরায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমা- যাওয়া হয়নি। মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে কাজল।

শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান বলেন, শিশুটির বাবা এখনো বলছে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আবার এখনো বলছে জন্ডিস ও সর্দি জ্বরে মারা গেছে। মৃত্যু আগে শিশুটিকে মারধর করেছিল কাজল। এছাড়া মারধর করার কারণে তিন মাস আগে কাজলের স্ত্রী তার বাবার বাড়িতে চলে যায়। এরপর থেকে বড় ছেলে সুরায়েত (৪) ও সাফায়েতকে নিয়ে বাংলামোটরের বাসায় একাই থাকতো কাজল। মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে সন্তানদের ঠিকমত যত্ন নিতো না। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলেই সাফায়েতের মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। কাজলের বড় ছেলে সুরায়েত তার মায়ের কাছে রয়েছে। কাজলের স্ত্রীর অভিযোগ শিশুটিকে কাজল হত্যা করেছে। গত বৃহস্পতিবার কাজলকে তিন দিনের রিমা- আনা হয়।

কাজলের বন্ধু মামুন বলেন, ঘটনার দিন বুধবার সকালে কাজল তাকে ফোন দিয়ে বলেছিল বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তার ছেলে মারা গেছে। কাজল মাদকাসক্ত থাকায় সন্তানদের প্রতি যত্ন নিতো না।

কাজলের প্রতিবেশী আমান ট্রেডিং হাউজের এক কর্মচারি বলেন, কাজল তাকে বলেছিল জন্ডিসে আক্রান্ত হয়ে তার ছেলে মারা গেছে। সম্পদ নিয়েও ভাইদের সঙ্গে বিরোধ ছিল তার। কাজলের স্বজনরা বলেন, কাজল তার সন্তানকে হত্যা করেনি। অসুস্থতার কারণে তার সন্তানের মৃত্যু হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত