প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অর্থবছর শেষে জিডিপি ৮.২৫ থেকে ৮.৩০ হবে : পরিকল্পনামন্ত্রী

সাইদ রিপন: পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন সর্বকালের সর্ববৃহৎ হয়েছে। আপনারাও এর সাক্ষী হয়ে থাকবেন। আমরা আশা করছি এবছর এডিপি পূর্ণ মাত্রায় বাস্তবায়ন হবে। এডিপির পূর্ণ বাস্তবায়নের ফলে জিডিপির লক্ষ্যমাত্রা ৮ দশমিক ২৫ শতাংশ থেকে ৮ দশমিক ৩০ শতাংশ হবে এবং ২০২১ সালের মধ্যে প্রবৃদ্ধি ১০ শতাংশ হবে। উন্নয়নের এ ধারাবাহিকতা থাকলে রেমিটেন্স প্রবাহ ১৬ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে।

রোববার শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা থাকায় শিক্ষা, স্বাস্থ্যখাতেও উন্নয়ন হচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত ২০৩০ সালে দেশে দারিদ্র থাকবে না। ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন করা গেলে রেভিনিউ কালেকশন কলেবর বাড়তো। গত ১০ বছরে কর্মসংস্থান বেড়েছে, তবে আশানুরুপভাবে হয়নি। সকল খাতেই বর্তমান সরকার উন্নয়ন রোল মডেল। দেশে এখন বিদ্যুৎ ঘাটতি নেই। দেশে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল বাস্তবায়িত হলে কর্মসংস্থানও বাড়বে।

মন্ত্রী বলেন, দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হলে সরকারের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। উন্নত বিশ্বে সরকার পরিবর্তন হলেও প্রেকল্প বাস্তবায়ন থেমে থাকে না। এক সরকারের কাজ অন্য সরকার ভালোভাবে বাস্তবায়ন করে। কিন্তু আমাদের দেশে এর উল্টো হয়ে থাকে। সরকার পরিবর্তন হলে দেশের উন্নয়ন প্রকল্প খুজে পাওয়া যায় না। আমাদের দেশে সরকার পরিবর্তন হলে উন্নয়ন কাজ থেমে যাবে। পরবর্তী সরকার এসে বাতিল করে দেবে। পদ্মাসেতু-মেট্রোরেলের মতো মেগা প্রকল্প আমরা হাতে নিয়েছি। এই কারণে মেগাপ্রকল্প বাস্তবায়নে সরকারের ধারাবাহিকতা দরকার। ব্যাংকিংখাত প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, এখাতে সরকারের কিছু ওভার সাইড দুর্বলতা রয়েছে। এই কারণে আর্থিকখাতের সমস্যা হয়েছে। সরকার সকল বাধা দূর করে প্রবৃদ্ধি অর্জন বাড়াতে চায়। তাই আগামীতে অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিকারি যে কোন খাতকে ঢেলে সাজানো হবে।

সম্পাদনা: সোহেল রহমান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত