প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘বিএনপি এবং ঐক্যফ্রন্ট সামনে নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে চ্যালেঞ্জ করে দিতে চাচ্ছে’

রাশেদুল ইসলাম : ‘নির্বাচন কেমন হতে যাচ্ছে’ এটি খুব সময়োচিত প্রশ্ন। আজকে নির্বাচন কমিশনের যে পরিস্থিতি আমরা দেখলাম,  তা পুনরায় দেখলে আমরা কিছুটা বুঝতে পারব। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন এটাকে কেন্দ্র করে আমাদের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের অনিশ্চয়তা কাজ করেছিল। সে অনিশ্চয়তা হুট করে আসছে নাই। গত নির্বাচনে যেহেতু আমাদের দেশের একটি বড় সংগঠন নির্বাচনের বাইরে ছিল সে কারণেই হয়তো মানুষের মধ্যে এই আলোচনাটা এসেছিল যে, এ বছর বিএনপি নির্বাচনে আসে কি আসেনা ?

রবিবার চ্যানেল ২৪ এর আয়োজিত ‘মুক্তমঞ্চ’ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক মফিজুর রহমান।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতীয় পর্যায়ে যে ডায়ালগ করলেন, সে ডায়ালগের মধ্যে দিয়ে তিনি সংবাদ দিয়েছিলেন যে, দলীয় সরকারের অধীনেই একটি নিরপেক্ষ, সুষ্ঠু, সুন্দর নির্বাচন তিনি করবেন। অধ্যাপক মফিজুর রহমান মনে করেন, বিভিন্ন দল সে ডায়লগগুলোতে আশ্বস্থ হয়েছে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাদেরকে আস্বস্থ করতে পেরেছেন ।

এরই প্রেক্ষিতে, সকল বড় সংগঠনগুলো এগিয়ে আসছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডায়ালগে যে আস্বস্থ হয়েছেন, সেটা এর প্রেক্ষিতে বলা যেতে পারে। তার পরবর্তী বিষয়গুলো হচ্ছে যে, একটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কিছু মাইলস্টোন থাকে। সে মাইলস্টোনের প্রথমেই হচ্ছে সিডিউল ঘোষণা। সে সিডিউল ঘোষণা করা হলো। সিডিউল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে একটু দ্বিমত ছিল, কিন্তু নির্বাচন কমিশন সেটাকে একত্রিত করেছে। দলগুলো দীর্ঘদিন পর কৌশলগত দিক থেকে বুঝতে পেরেছে যে, নির্বাচনে সকল দলই যখন অংশগ্রহণ করছে। অতএব, নির্বাচনটি একটি প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন হবে।

অন্যদিকে, বৃহৎ সংগঠন বিএনপি যে ঐক্যফ্রন্ট করেছেন সেখানে বিএনপি এবং ঐক্যফ্রন্ট সামনে নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে চ্যালেঞ্জ করে দিতে চাচ্ছে এবং সে লক্ষেই তারা একত্রিত হয়েছে। অতএব, সবার সম্মেলিত অংশগ্রহণ দেশবাসীকে আস্বস্থ করে। আবার যখন অনেকের প্রার্থীতা বাতিল হলো, তখন আবার মানুষের মধ্যে একটু অনিশ্চয়তা ছিল যে আসলে কেন এত ব্যাপক সংখ্যক প্রার্থীতা বাতিল হচ্ছে?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ