প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বগুড়ায় পুলিশ হেফাজতে থাকা রোহিঙ্গা তরুণীকে কক্সবাজারে শরণার্থী ক্যাম্পে ফেরত

আরএইচ রফিক,বগুড়া : বগুড়ায় আটক রোহিঙ্গা তরুণী জাহিদা বেগম (২০)কে অবশেষে তার শরনার্থী কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। ম্যালেশিয়া যাওয়ার আসায় বগুড়ায় পাসপোর্ট করতে এসে পডাড়াও হয় রোহিঙ্গা তরুনী জাহিদা। পরে তাকে থানায় সোপর্দ করা হয়।

জাহিদা বেগমের বাড়ি মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মন্ডু থানার গড়াখালী পাড়ায়।বর্তমানে তার আবাসস্থল কক্সবাজারের শরনার্থী ক্যাম্পে ।

বগুড়া পুলিশের একটি দায়িত্বশীল বিষয়টি নিশ্চিৎ করে জানান, শনিবার রাতে কিম্বা রবিবার তাকে কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাঠানো হতে পারে।

জানা গেছে , মালয়েশিয়া যাওয়ার প্রলোভন দিয়ে একটি সঙ্গবদ্ধ দালাল চক্র গত বুধবার জাহিদা বেগমকে কক্সবাজারের আশ্রয় শিবির থেকে বগুড়ায় নিয়ে আসে । চক্রটি পরে তাকে পাসপোর্ট অফিসে নিয়ে যায়। এসময় সেখানে তিনি নিজেকে বাংলাদেশি নাগরিক হিসাবে পরিচয় দিয়ে তার অনুকুলে পাসপোর্ট দেবার জন্য আবেদন জানিয়ে জন্য কাগজপত্র দাখিল করেন। তার অসংলগ্ন কথাবার্তায় রোহিঙ্গা বলে সন্দেহ হলে পাসপোর্ট অফিসের দায়িত্বশীল বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করে। পরে পুলিশ তাকে থানা হেফাজতে নেয়। এদিকে গেল নিবিড় জিজ্ঞাসাবাদের পরও গত ৩দিন রোহিঙ্গা তরুণী জাহিদা বেগম তার পরিচয় বিস্তারিত স্পষ্ট করেনি বলে মনে করা হচ্ছে । তবে শুক্রবার রাতে সে তার নাম-পরিচয় জানিয়ে সঙ্গবদ্ধ দালালদের মাধ্যমে পাসপোর্ট করার জন্য বগুড়া এসেছিল বলে জানিয়েছে ।

জাহিদা বেগম জানান পুলিশকে জানায়, মায়নমারে রাখাইন অঞ্চলে ভয়াবহ পুলিশ ও সেনা অভিযানের সময় তাদের বাড়ি ঘড় পুড়িয়ে দেয়া হয় । তার দাবি আর্মি ইউনিটের লোকজন । তার পরিবারের অনেককে গুলি করে হত্যা করেছে। এরপর প্রাণ ভয়ে মাসহ পরিবারের অন্যান্যদের সঙ্গে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। তারপর থেকে তার পরিবারের সাথে কক্সবাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পেই ছিলেন।

এদিকে এ বিষয়ে বগুড়া সদর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান এর সাথে এ বিষয়ে জানাতে চাইলে তিনি জানান, তাকে বিশেষ পুলিশ স্কটের মাধ্যমে শরণার্থী ক্যাম্পে পাঠানোর প্রক্রিয়া সমপন্য করা হয়েছে। শনিবার রাতে কিম্বা রোববার তাকে কক্সবাজারে পাঠানো হচ্ছে ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ