প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘তরুণরা নিশ্চয়ই হাতুড়ি-হেলমেট বাহিনীর কথা ভুলে যায়নি’

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের পক্ষে সাকিব আল হাসানের ভোট চাওয়া নিয়ে ইউনিভার্সিটি অব বনের ভিজিটিং রিসার্চ ফেলো ড. মারুফ মল্লিক বলেন, সাকিব যতই আওয়ামী লীগের পক্ষে ভোট চান না কেনো তরুণরা নিশ্চয়ই হাতুড়ি-হেলমেট বাহিনীর কথা ভুলে যায়নি।

শুক্রবার দৈনিক প্রথম আলোর অনলাইনে তিনি একথা বলেন।

মারুফ মল্লিকের ভাষায়, সম্প্রতি সাকিব আল হাসানের প্রকাশিত একটি ভিডিও বার্তায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেছেন। বিশেষ করে তরুণদের কাছে। আবেগঘন ওই বার্তায় সাকিব বলেছেন, ‘সবাইকে ভালো রাখা ও সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার এক দুর্বার যাত্রায় এখন আমরা আছি। বিদ্যুতে, শিক্ষায়, খাদ্যে, স্বাস্থ্যে, নারীর ক্ষমতায়নে, সামাজিক ও মানব উন্নয়নে তো বটেই, অবকাঠামো, যোগাযোগ ও ডিজিটাল উন্নয়নে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের উদাহরণ হতে চলেছে।’ সাকিব এ অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে তরুণদের সক্রিয় অংশগ্রহণ চেয়েছেন।

‘কিন্তু তরুণদের সমস্যাগুলো সাকিবের বক্তব্যে পাওয়া যায় না। সাকিব আল হাসান সরলীকরণ করে উন্নয়নের ব্যাখ্যা দিয়েছেন। সাকিব উন্নয়নের যে সূচকগুলোর কথা উল্লেখ করেছেন, এসবের উন্নতি সব সরকারের আমলেই হয়ে থাকে কমবেশি। প্রশ্ন হচ্ছে শিক্ষাজীবন শেষে যদি চাকরি, জীবিকার নিশ্চয়তা না থাকে, তবে এসব কথিত উন্নয়নের সুযোগ তো তরুণেরা নিতে পারবেন না। কিন্তু এ তরুণেরাই এবারের নির্বাচনের গতিপথ বদলে দিতে পারে।’

‘সাকিব আল হাসান তার দলের ভোট বাড়াতে এই তরুণদের লক্ষ্য করেছেন। নিজের ইমেজকে ব্যবহার করে তরুণদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করেছেন। তবে সাকিবের প্রচারণায় আছে অর্জনের গল্প। সন্দেহ নেই, অর্জন অবশ্যই কৃতিত্বের। কিন্তু সেই সঙ্গে যে সামনের স্বপ্নটাও রাখতে হয়। ৮০ বছরের বৃদ্ধ নিজের অর্জন নিয়ে সুখ রোমন্থন করেন। কিন্তু ১৮ বছরের তরুণের চোখে থাকে অনাগত ভবিষ্যতের স্বপ্ন। তরুণদের যৌক্তিক পরিকল্পনা করে বাস্তবসম্মত স্বপ্ন দিয়ে আকৃষ্ট করতে হয়। পেছনের অতীত দিয়ে কাছে টানা যায় না। বরং কিছু কিছু অতীত দিয়ে দূরেও ঠেলে দেয়। কারণ, ভোটকেন্দ্রে তরুণদের চোখে যদি হাতুড়ি বাহিনী, হেলমেট বাহিনীসহ নানা বাহিনীর চিত্র ওঠে, তবে তা সুখকর হবে না। তরুণেরা নিশ্চয়ই এসব কথা ভুলে যায়নি। কোটা আন্দোলনের নেতাদের রিমান্ডের কথাও তরুণেরা সব মনে রাখে।’

আরএ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ