প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাতবার করছেন হাসানাত
সংসদ নির্বাচনে দশম বারের মতো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আমু-তোফায়েল

খোকন আহম্মেদ হীরা, বরিশাল : ষাটের দশকে বরিশাল ব্রজমোহন (বিএম) কলেজে ছাত্রনেতা হিসেবে ছাত্র সমাজকে নেতৃত্ব দিয়ে রাজনীতিতে হাতখড়ি দেয়া বিভাগের সবকটি রাজনৈতিক দলের মধ্যে বর্ষীয়ান দুই নেতা আওয়ামী লীগ সভাপতির উপদেষ্টা শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এমপি এবং বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি।

তারা দক্ষিণাঞ্চলে অন্যান্য রাজনৈতিক নেতাদের চেয়ে বেশিবার জাতীয় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ১৯৭০ সাল থেকে এ পর্যন্ত যতগুলো জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অংশগ্রহণ করেছে তার সবগুলোতে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ। একাদশ সংসদ নির্বাচনসহ আমির হোসেন আমু মোট ১০বার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন। তোফায়েল আহমেদও একাদশ সংসদ নির্বাচনসহ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১০বার। বিগত নির্বাচনগুলোর প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আমির হোসেন আমু পাঁচবার আর তোফায়েল আহমেদ সাতবার বিজয়ী হয়েছেন। একাদশ জাতীয় নির্বাচনেও এই দুই নেতার জয়ের ব্যাপারে দৃঢ় আশাবাদী স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা।

দলীয় সূত্রমতে, এ দুই বর্ষিয়ান নেতা ষাটের দশকে বরিশাল ব্রজমোহন (বিএম) কলেজে ছাত্রনেতা হিসেবে ছাত্র সমাজকে নেতৃত্ব দিয়ে রাজনীতিতে হাতখড়ি দিয়েছিলেন। আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদের সমকক্ষ রাজনীতিবিদ এখন আর দক্ষিণাঞ্চলে নেই। দুজনেরই রাজনীতির সূচনা হয়েছিল বিএম কলেজের ছাত্রলীগের হাত ধরে। আমির হোসেন আমু ষাটের দশকে বিএম কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। প্রায় একই সময়ে ছাত্র সংসদের ক্রীড়া সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন তোফায়েল আহমেদ। পরে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডাকসুর) ভিপি নির্বাচিত হন।

আমির হোসেন আমু ১৯৭০ সালের প্রথম নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বরিশাল সদর আসন থেকে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় পরিষদেও নির্বাচন হয় ১৯৭৩ সালে। তখন তিনি ঝালকাঠী-২ (সদর-নলছিটি) থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। একই আসনে ৭৯, ৮৬, ৯১ ও ৯৬ সালে নির্বাচন করে পরাজিত হন। ১৯৯৮ সালে ঝালকাঠী-২ এর উপনির্বাচনে আমির হোসেন আমু এমপি নির্বাচিত হন। ২০০১ সালের নির্বাচনে আবারও তিনি পরাজিত হন। ২০০৮ সালে ঝালকাঠী-২ আসন থেকে প্রতিদ্বন্ধিতা করে এবং ২০১৪ সালে বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় আমির হোসেন আমু সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে ঝালকাঠী-২ এর পাশাপাশি বরিশালের বানারীপাড়া ও পিরোজপুরের স্বরূপকাঠী সংসদীয় আসনে এবং ১৯৯৬ সালে ঝালকাঠী-২ এর সাথে ১ আসনেও প্রতিদ্বন্ধিতা করেছিলেন আমির হোসেন আমু। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি ঝালকাঠী-২ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী।

আমির হোসেন আমু প্রসঙ্গে ঝালকাঠী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান সাইফুল্লাহ পনির বলেন, তার মতো বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদকে নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলবাসী গর্বিত। তাকে আবারও বিজয়ী করতে ঝালকাঠীর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে প্রচার-প্রচারনা চালাচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, ঝালকাঠী-২ আসনে মোট কেন্দ্র হলো ১৪৭টি। নির্বাচনের প্রস্তুতি হিসেবে ২০০ থেকে ২৫০ জন কর্মী নিয়ে ইতোমধ্যে কেন্দ্র কমিটিও গঠণ করা হয়েছে।

অপরদিকে ১৯৭০ সালের নির্বাচনে মাত্র ২৬ বছর বয়সে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন তোফায়েল আহম্মেদ। তিনি দ্বীপজেলা ভোলা-১ (সদর) থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন। একই আসন থেকে সাংসদ নির্বাচিত হন ১৯৭৩, ‘৯১, ‘৯৬, ২০০৮ এবং ২০১৪ সালের নির্বাচনে। ১৯৮৬ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন ভোলা-২ আসন থেকে। ওই আসন থেকে ৯১ ও ৯৬ সালেও বিজয়ী হন তোফায়েল আহমেদ। অর্থাৎ ওই বছরগুলোতে তিনি দুটি করে আসনে বিজয়ী হয়েছিলেন। ১৯৭৯ ও ২০০১ এর নির্বাচনে তিনি পরাজিত হন। তোফায়েল আহম্মেদ ভোলা-১ আসন থেকে একাদশ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সাংবাদিকদের সাথে প্রতিক্রিয়ায় তোফায়েল আহম্মেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্নেহে মাত্র ২৬ বছর বয়সে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের নির্বাচনে আমাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিলো। আমি নির্বাচনে কখনও পরাজিত হইনি। প্রহসন করে দুইবার আমাকে পরাজিত দেখানো হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ