প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খেলাপি আদায়ে অস্থাবর সম্পত্তি বন্ধক ও বাজেয়াপ্তে খসড়া আইন করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

রাশিদ রিয়াজ : ঋণের বিপরীতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ঋণ গ্রহীতার অস্থাবর সম্পদ বন্ধক হিসেবে বিবেচনা ও ঋণ খেলাপি হলে তা বাজেয়াপ্ত করা যাবে এমন শর্ত রেখে আইনের খসড়া প্রণয়ন করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েবসাইটে এজন্যে মতামত চাওয়া হয়েছে। এরপর আইনটি জাতীয় সংসদে পাশ হলে তা খেলাপি আদায়ে কার্যকর উদ্যোগ হিসেবে কাজে লাগবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক সিনিয়র কর্মকর্তা বলেছেন, গত তেসরা ডিসেম্বর এ সম্পর্কিত আইনের খসড়া ব্যাংকের ওয়েবসাইটে দেয়া হয়েছে এবং আইনটি নিয়ে সুপারিশ ও মতামত আশা করছি আমরা। তিরিশ দিনের মধ্যে এধরনের মতামত গ্রহণ করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। অনেক ব্যাংকাররাও মনে করছেন এধরনের আইন প্রচলিত আইনকে খেলাপি আদায়ে আরো শক্তিশালী ও সম্প্রসারিতভাবে সহায়তা করবে। প্রচলিত আইনে যে সম্পদ বন্ধক রাখার ব্যবস্থা রয়েছে তাতে ঋণ আদায়ের ক্ষেত্রে যথাযথ ব্যবস্থা নয় বলেই অস্থাবর সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার বিষয়টি প্রয়োজনে ভাবা হচ্ছে এবং এতে ঋণ পরিশোধে গ্রহীতারা চাপ সৃষ্টি করবেন এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রমে এর সুফল পড়বে।

খসড়া এ আইনটির নাম দেয়া হয়েছে, ‘দি সিকিউরড ট্রান্স্যাকশন এ্যাক্ট’। যাতে প্রচলিত বন্ধক ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার কথা বলা হয়েছে। সংসদে পাঠানের আগে খসড়া আইনটি পরীক্ষার জন্যে আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। অস্থাবর সম্পদ হিসেবে মালামাল, যন্ত্রাংশ, নগদ টাকা, মূল্যবান দলিল, সিকিউরিটি, ফেসভ্যালু হিসেবে যে কোনো ধরনের সম্পদ যা হস্তান্তরযোগ্য তা বন্ধক হিসেবে গণ্য করে খেলাপি পরিশোধে ব্যর্থ হলে তা বাজেয়াপ্তের বিধান রাখা হয়েছে এ আইনে। এধরনের সম্পদ ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে বর্তমানে বন্ধক হিসেবে বিবেচিত নয়। তবে বাড়ি বা ফ্লাট, জমি যা ব্যাংকের অনুমোদন সাপেক্ষ ঋণের বন্ধক হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সি (জাইকা)’র একটি প্রকল্পের অধিনে এধরনের আইনের খসড়া প্রণয়ন করা হচ্ছে। মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের এমডি আনিস এ খান বলেছেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ ব্যাপারে আমাদের মতামত চেয়েছে এবং আমরা তা তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছি। এধরনের আইন ঋণের বৈচিত্রকরণ ছাড়াও তা খেলাপিতে পরিণত না হওয়ার ব্যাপারে সহায়তা করবে। ইন্স্যুরেন্স খাতও এ আইনের দ্বারা লাভবান হবে। সার্বিক অর্থনীতিতেও এ আইন বড় ধরনের প্রভাব ফেলবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ