প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মির্জা ফখরুলকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করতে চাই : হানিফ

মারুফুল আলম : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, মির্জা ফখরুল সাহেবের সঙ্গে কথা বলার খুব ইচ্ছা ছিলো, ইচ্ছা ছিলো ওনাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নিই। কারণ উনি কয়েকদিন আগেই বলেছেন, আওয়ামী লীগ আগামি নির্বাচনে মাত্র ৩০টি সিট পাবে। তার মানে ওনাদের বিজয় সুনিশ্চিত। বৃহস্পতিবার নিউজ২৪ ‘গণতন্ত্র জনতন্ত্র’ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশের জনগণ রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে দেশের উন্নয়ন, জনগণের কল্যাণ এবং জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন চায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার টানা দশ বছর রাষ্ট্রশাসনকালে দেশের যে উন্নয়ন এবং অগ্রগতি হয়েছে তা অভাবনীয়। ২০০৯ সালে অন্ধকারে তলিয়ে যাওয়া দেশটির দায়িত্ব নিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। খাদ্য-ঘাটতি ছিলো, আমরা এখন স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি।

ভয়াবহ বিদ্যুৎ ঘাটতি ছিলো, ৩ হাজার ১৫০ মেগাওয়াট থেকে ২০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা হয়েছে। শিক্ষায় অভাবনীয় পরিবর্তন এসেছে। বছরের শুরুতে বিনামূল্যে বই বিতরণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা এখন মানুষের নাগালে। কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিকের মাধ্যমে একেবারে গ্রামপর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেয়া হয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪ বিলিয়ন ডলার থেকে ৩৪ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। বৈদেশিক রপ্তানি ছিলো ৫ বিলিয়ন ডলার মাত্র। এই দশ বছরে তা ৪৪ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। মাথাপিছু আয় ছিলো ৫০০ ডলারের মতো, আজকে সেখানে ১৭৫২ ডলারে।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি-জামায়াতের শাসনামলে যা হয়েছে, তাকে দুঃশাসনই বলা যায়। একদিকে সীমাহীন দুর্নীতি, অন্যদিকে দেশকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্র হিসেবে পরিণত করা হয়েছিলো। প্রতিটি সেক্টরই ছিলো চরমভাবে ব্যর্থ।

বিএনপি-জামাত ২০১৪ সালে নির্বাচন প্রতিহতের নামে ৫০০টি ভোটকেন্দ্র পুড়ে দিয়েছিলো, প্রিজাইডিং অফিসারকে হত্যা করেছিলো, প্রায় দু’শ-আড়াই’শ সাধারণ ভোটারদের গুলি করে এবং পুড়িয়ে হত্যা করেছিলো। দুই হাজার মানুষকে আহত করা হয়েছিলো। যার কারণে সেসময় ভোটের হার কিছুটা কম ছিলো। তারপরে ঐ নির্বাচন বাতিল করার জন্য তারা যে আন্দোলন করলো যার নাম পেট্রোল-বোমার আন্দোলন। সাধারণ মানুষকে কিভাবে পেট্রোলবোমা মেরে হত্যা করা হয় জনগণ দেখলো। এই যদি তাদের গণতন্ত্র হয়, তাহলে তাদের সেই গণতন্ত্র দেশের জনগণ দেখতে চায় না। উচ্চতর আদলত জামায়াতকে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করায় বিএনপি ২০১৪ সালে নির্বাচনে অংশ নেয়নি উল্লেখ করে হানিফ বলেন, বিএনপি-জামায়াত তারা একে অপরের পরিপূরক।

হানিফ বলেন, এটাই স্বাভাবিক যে, জনগণ জনগণ রায় দেবে উন্নয়ন ও অগ্রগতির পক্ষেই। এ কারণে আমরা জয়লাভের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদি। নির্বাচনে জয়লাভের ব্যাপারে আওয়ামী লীগের কোনো চ্যালেঞ্জই নেই।