প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনেও কাক্সিক্ষত গণতন্ত্র অর্জিত হয়নি : শফী আহমেদ

তানজিনা তানিন : ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ ও সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের উদ্দেশ্য ছিলো একটাই- গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা। সেই কাক্সিক্ষত গণতন্ত্র অর্জন করতে পারিনি আমরা। গণতন্ত্রের যে প্রকৃত সংজ্ঞা তা বাস্তবায়ন হয়নি বলে মন্তব্য করেন স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম ছাত্র নেতা শফী আহমেদ।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, গণতন্ত্র বলতে বোঝায়, বৈষম্যহীন, অসাম্প্রদায়িক, মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন সমাজ। গণতন্ত্রের এই প্রধান শর্তগুলো পূরণ হয়নি। সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনের ফলে স্বৈরাচারী এরশাদের পতন ঘটেছিলো। তবে দেশের বিভিন্ন সময়ের রাজনৈতিক অবস্থা ও নেতৃত্ব প্রমাণ করেছে পরিপূর্ণ গণতান্ত্রিক ভাবধারা দেখতে পাইনি আমরা কখনও।  এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো মুক্তিযুদ্ধের রূপরেখা ও ছাত্রদের যে দশ দফা দাবি ছিলো তা মেনে চলেনি। গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোও পূর্ণতা লাভ করেনি। ফলে গণতন্ত্র প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বার বার। ১/১১- এর ঘটনা ও ২০১৪ তে যে নির্বাচন হয়েছে তা গ্রহণযোগ্য না হওয়ার কারণ গণতান্ত্রিক সমাজ গড়ে তুলতে না পারা। এবারের নির্বাচনও যে গণতান্ত্রিক ধারায় হচ্ছে তা বলা যাবে না। বাংলাদেশ ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষিত।

কিন্তু রাজনৈতিক অঙ্গনে মৌলবাদী দলগুলোর উত্থান, ধর্মভিত্তিক রাজনীতির যে প্রসার তা দেশকে যেকোনও সময় হুমকির মুখে ফেলতে পারে এবং জঙ্গিবাদের জন্ম দিতে পারে। তাই গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র গঠনের সংগ্রাম আরও চালিয়ে যেতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ