প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নওগাঁয় জনপ্রিয় হচ্ছে মাল্টা চাষ

অনলাইন ডেস্ক: আমের পর নওগাঁ’র বরেন্দ্র এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে মাল্টা চাষের বিপুল সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। ইতোমধ্যে জেলার পোরশায় ৫০ বিঘা জমিতে মাল্টা চাষ করা হয়েছে। সূত্র: সময় টিভি

মাটির গুণগত মান মাল্টা চাষের উপযোগী হওয়ায় আকারে বড় ও সুমিষ্ট মাল্টা ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এলাকায়। কৃষি বিভাগ বলছে, সম্ভাবনার দিকে নজর রেখে মাল্টা চাষে কৃষকদের আধুনিক কলা কৌশলসহ নানাভাবে সহযোগিতা করা হচ্ছে।

বরেন্দ্রর মাটি কর্দমাক্ত ও শক্ত হলেও আমের পর মাল্টা চাষেও উপযোগী বলে প্রমাণিত হয়েছে। নওগাঁর পোরশায় ৭ বিঘা জমিতে মাল্টার বাগান গড়েছেন বেলাল হোসেন। গাছের বয়স এক বছর না যেতেই ফলের ভারে নুইয়ে পড়েছে এর ডালপালা।

সেচ বা বাড়তি তেমন যত্ন লাগে না মাল্টা চাষে। ফলে নওগাঁর বরেন্দ্র ভূমিতে আমের পর মাল্টাও সম্ভাবনাময় অর্থকারী ফসল হয়ে উঠছে এলাকার কৃষকদের কাছে।

মাল্টা চাষি মো. বেলাল হোসেন, বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে আমাদের বাগানের মাল্টা দেখছেন। তারা কেনার আগ্রহ প্রকাশ করছেন। বাজার থেকে আমরা সাধারণত যেই মাল্টা ক্রয় করি তার চাইতে এটা অনেকগুণ মিষ্টি। মাল্টা চাষে তেমন খরচ লাগে না। এক বছরে একটি গাছ থেকে ৫০ থেকে ৬০টি মাল্টা পাওয়া যায়। লাভজনক হওয়ায় বাণিজ্যিকভাবে এখানে বাগান গড়ে তুলছেন কৃষকরা।

এদিকে মাল্টা চাষ জনপ্রিয় হয়ে ওঠায় এর চারা সরবরাহ করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন অনেক কৃষক। মাল্টা চাষকে জনপ্রিয় করা গেলে একদিকে আর্থিকভাবে লাভবান, অন্যদিক পুষ্টিকর এ ফল আমদানি নির্ভরতা কমবে বলে মনে করেন নওগাঁর পোরশা উপজেলার কৃষি অফিসার মো. মাহফুজ আলম।

তিনি বলেন, যেহেতু পুষ্টি গুণে এটা অনন্য তাই সামনের দিনগুলোতে এটা চাষ করে একটা বিপ্লব ঘটানো সম্ভব হবে বলে আমি মনে করি।

বারি-১ নামক উন্নত জাতের মাল্টা চাষ করছেন এখানকার কৃষকেরা । ইতোমধ্যে বাগান থেকে ফল কিনে নিয়ে যাচ্ছেন পাইকাররা। সম্পাদনা: দেবদুলাল মুন্না

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ