প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ন্যায়বিচারের জন্য ইসিকে ধন্যবাদ মির্জা ফখরুলের
খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা বৈধ হওয়ার প্রত্যাশা

যুগান্তর :  বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, রিটার্নিং কর্মকর্তারা যে অসংখ্য প্রার্থীকে অবৈধ ঘোষণা করেছিলেন, নির্বাচন কমিশনের শুনানির মধ্য দিয়ে তাদের অনেকেই প্রার্থী হওয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হয়েছেন।

আমি নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানাই, তারা ন্যায়বিচার করেছে। আমি এটাও আশা করি, ন্যায়বিচার যদি প্রতিষ্ঠিত হয়, তাহলে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াও নির্বাচনে বৈধ প্রার্থী হিসেবে ঘোষিত হবেন, বিবেচিত হবেন। রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এ কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব।
মির্জা ফখরুল বলেন, নির্বাচন কমিশন যেসব কর্মকর্তাকে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব দিয়েছিলেন, সেখানে অনেক জায়গায় প্রার্থীরা ন্যায়বিচার পাননি। বিএনপি বরাবরই যে কথা বলে আসছে সেটি হল, যে সরকার দায়িত্বে থাকে তার কথা বেশির ভাগ সময় সরকারি কর্মকর্তাদের মেনে চলতে হয়। সে কারণে অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ন্যায়বিচার করা সম্ভব হয় না।

তিনি বলেন, বিএনপির অনেক প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ হওয়ার ঘোষণা, এটা একটি বিজয়। বিএনপির আন্দোলনে জনগণের বিজয় যে আজকে দলের প্রার্থীরা বৈধ হয়ে এসেছেন এবং তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। তিনি বলেন, আমি এটাও আশা করি, ন্যায়বিচার যদি প্রতিষ্ঠিত হয়, তাহলে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াও নির্বাচনে বৈধ প্রার্থী হিসেবে ঘোষিত হবেন, বিবেচিত হবেন।

নির্বাচনের পরিবেশের বিষয়ে ফখরুল ইসলাম বলেন, আজ সরকার এত ভীতসন্ত্রস্ত বলেই তারা রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করছে। সংসদ নির্বাচন সাংবিধানিকভাবে নিরপেক্ষ হতে হবে। সেখানে সরকার বেআইনিভাবে হস্তক্ষেপ করছে, উদ্দেশ্য নির্বাচনকে প্রভাবিত করা। তিনি আরও বলেন, সারা দেশে গ্রেফতার চলছেই, কোথাও কোথাও বাড়ছে। আজ (বৃহস্পতিবার) খবর

এসেছে বিএনপি কোথাও কোথাও ঘরোয়া সাংগঠনিক সভা করছে, সেখানেও বাধা দিচ্ছে। দুর্ভাগ্যজনক হলেও প্রশাসন এখানে অনেক ক্ষেত্রে যুক্ত হচ্ছে। এ সময় নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে এবং গ্রেফতার বন্ধ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ