প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিধিমালা ও আইনকানুন পরিপালনের বিএসইসি আদর্শ প্রতিষ্ঠানে রুপান্তর হয়েছে: অর্থমন্ত্রী

মাসুদ মিয়া: বিধিমালা ও আইনকানুন পরিপালনের মাধ্যমে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) একটি আদর্শ প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। মঙ্গলবার রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে শেয়ারবাজারের উন্নয়নে অবদানের জন্য সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ২০১০ সালে শেয়ারবাজার ধসের পরে বিএসইসি পুনঃগঠন করা হয়। যে কমিশনের কয়েক বছর কেটেছে সংস্কারের মধ্যে। এর মাধ্যমে কমিশন শেয়ারবাজারের ভিত্তি মজবুত করেছে। আর এখন শেয়ারবাজারকে এগিয়ে নিতে কাজ করে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে কমিশন দক্ষতা ও সক্ষমতার প্রমাণ রাখছে। যে কারনে বর্তমান কমিশনের উপর সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী। একইসঙ্গে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। বিএসইসির বর্তমান কমিশন শেয়ারবাজারকে ভালোভাবেই এগিয়ে নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। বিশেষ করে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) কাজ ভালোভাবে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, দেশের শেয়ারবাজারে ২ বার ধস হয়েছে। যার প্রতিবারই হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে। যা এই সরকারের জন্য সুখকর ছিল না। বরং কলঙ্কজনক হচ্ছিল। যা রোধে বিএসইসির কমিশনকে নতুন করে সাজানো হয়। এবং ওই কমিশন ভালোভাবেই সেই পরিস্থিতি সামলে নিয়েছে। আর শেয়ারবাজারকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। দেশের শেয়ারবাজারের উন্নয়নে অর্থমন্ত্রীর ভূমিকা অনস্বীকার্য বলে জানিয়েছেন বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন। যার আত্মত্যাগ অস্বীকার করার সুযোগ নেই। যিনি শেয়ারবাজারের যেকোন প্রয়োজনে এগিয়ে এসেছেন।

খায়রুল হোসেন বলেন, শেয়ারবাজার এখন স্থিতিশীল এবং উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এর পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান অর্থমন্ত্রীর। তার নির্দেশনায় স্টক এক্সচেঞ্জ ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন হয়েছে। ২০১৯ সাল শেয়ারবাজারের জন্য উল্লেখযোগ্য হবে বলে জানিয়েছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান। তাই শেয়ারবাজারে সবাইকে আস্থা রাখার অনুরোধ করেছেন।

শেয়ারবাজারে আইনগত ভিত্তি ও কাঠামো তৈরী হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান। এরমাধ্যমে শেয়ারবাজারের ভিত্তি মজবুত হয়েছে। এখন সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। এলক্ষ্যে স্মল ক্যাপ মার্কেট ও ক্লিয়ারিং অ্যান্ড সেটেলম্যান্ট হাউজ গঠন করা হচ্ছে। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব আশাদুল ইসলাম, বিএসইসির কমিশনারগনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ