প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রক্তের বদলা নেওয়ার ঘোষণা দিলেন বাবু নগরী

পরিবর্তন: টঙ্গীর মাঠে রক্তপাতের ঘটনায় বদলা নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হাটহাজারী দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদরাসার সহকারী পরিচালক আল্লমা জুনাইদ বাবুনগরী। ঢাকার টঙ্গীতে তাবলিগ-জামায়াতের দুই গ্রুপের মাঠ দখলকে কেন্দ্র করে রক্তপাতের ঘটনায় সোমবার বিকেলে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে হেফাজত ইসলাম ও মাওলানা শফির অনুসারীদের বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশে তিনি এ ঘোষণা দেন।

সে সময় বলেন, ইজতেমার মাঠে পরিকল্পিতভাবে আলেম-উলামা ও মাদরাসার ছাত্রদের উপর জঘন্যতম হামলা করা হয়েছে। যে ইজতেমার ময়দানে দাওয়াতের কাজ চলত, সেই ময়দানেই নিরীহ মাসুম ছাত্রদের রক্ত ঝরেছে। এসব মাসুম ছাত্রদের রক্তের বদলা নেব ‘ইনশাআল্লাহ’!

হেফাজত নেতা আল্লামা বাবুনগরী বলেন, চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসুদকে এখন থেকে আর আসতে দেওয়া হবে না। চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হলো। চট্টগ্রামের কোনো মাদরাসায় জেনো মাওলানা মাসুদ আসতে না পারে সে ব্যাপারে সজাগ থাকার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। সে সময় তিনি হামলার নির্দেশদাতা হিসেবে ওয়াসিফ ও নাসিমদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান প্রশাসনের কাছে। মুফতি মোহাম্মদ আলী কাসেমীর সভাপতিত্বে সমাবেশে মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জী, মাওলানা শফিউল্লাহ, মাওলানা ইমরান, মাওলানা মাহমুদ ও হাসান ছাড়াও অনেক আলেম-উলামা, ছাত্র ও তাবলীগের সাথীরা উপস্থিত ছিলেন। হাটহাজারী ডাক বাংলো চত্বরে সমাবেশে শেষে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে হাটহাজারী বাস স্টান্ড ও জাগৃতি প্রদক্ষিণ করে আবার ডাক বাংলোর রোড়ে গিয়ে শেষ হয়। ওই সময় চট্টগ্রাম খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম মহাসড়কে প্রায় দেড় ঘন্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ গিয়ে বিক্ষোভকারীদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দিলে প্রায় দেড় ঘণ্টা পর যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ