প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জাতীয় নির্বাচন নিয়ে কৌশল নির্ধারণে ব্যস্ত আ’লীগের হাইকমান্ড

রফিক আহমেদ : সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে ব্যস্ততম সময় অতিবাহিত করছেন সরকারি দল আওয়ামী লীগের হাই-কমান্ড। এরইমধ্যে দলের বিদ্রোহীদের বুঝিয়ে নি®কৃীয় করা এবং তৃণমূলে নেতাকর্মীদের দ্ব›দ্ব মিটিয়ে সৌহাদ্যপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে নিরলস চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দলটির শীর্ষপর্যায়ের নেতারা। একইসাথে নির্বাচনী প্রচারণা, আসন ভিত্তিক কমিটি ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন নিয়ে শেষ মুহুর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। এরইমধ্যে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলীয় কোন্দল-মতানৈক্য দূর করতে কাজ শুরু করেছেন আওয়ামী লীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত পাঁচ নেতা। ৩০০ আসনের মধ্যে যেসব আসনে মনোনয়নকে কেন্দ্র করে দলের ভেতর আভ্যন্তরীণ কোন্দল তৈরি হয়েছে। ওইসব আসনের ব্যাপারে এরই মধ্যে খোঁজ-খবর নেওয়া শুরু হয়েছে।

এদিকে আসন্ন ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচনকে ঘিরে রাজনৈতিক দলগুলোর তৃণমূলে তৎপরতা বাড়ছে। চাঙ্গা হয়ে উঠছে তৃণমূলের রাজনীতি। চলছে গণসংযোগ, মিটিং মিছিল আর নানা রকমের প্রতিশ্রæতি। সব দলের কেন্দ্রীয় নেতারাও এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। প্রার্থী তালিকা প্রস্তত করা, কেন্দ্র ভিত্তিক কমিটি, আসনভিত্তিক দ্ব›দ্ব নিরসনসহ নানামুখী চ্যালেঞ্জে পড়েছে সরকারি দলটি। ইতোমধ্যে সরকারের উন্নয়ণমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরে কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচনী প্রচারে নেমেছেন দলটির তৃণমূল। সব মিলিয়ে দেশজুড়ে নির্বাচনী উৎসবের আমেজ তৈরি হয়েছে। এতে তৃণমূল আওয়ামী লীগে সাজ সাজ রব বিরাজ করছে।

জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে রাজধানীর ১৫টি সংসদীয় আসনের বিভিন্ন কেন্দ্রভিত্তিক কমিটির কাজ শুরু হয়েছে। নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখতে ওয়ার্ড পর্যায়ে আনুষ্ঠানিক সভা-সমাবেশের মধ্য দিয়ে কমিটি গঠন করা হচ্ছে। এসব কমিটিতে আওয়ামী লীগ ছাড়াও যুবলীগ-ছাত্রলীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সমন্বয় করা হচ্ছে। কেন্দ্রভিত্তিক প্রতিটি কমিটিতে ১০০-১৫০ জনকে রাখা হচ্ছে। সর্বশেষ ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনের ১৬৫টি কেন্দ্র ভিত্তিক কমিটি সম্পন্ন করার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজল। আগামী সাপ্তাহের মধ্যে নির্বাচন কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি গঠনের কাজ শেষ হবে বলেও জানান সজল। একইভাবে ঢাকা-৬ আসনে সকল নির্বাচন কেন্দ্র ভিত্তিক কমিটি গঠন চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। তবে ওয়ারী থানার আওতাধীন কেন্দ্র আছে ২৪টি। এই কেন্দ্রগুলোতে কমিটি গঠনের কাজ ইতেমধ্যে শেষ হয়েছে বলে জানান ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী আশিকুর রহমান লাভলু। আর ঢাকা-৮ আসনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে কেন্দ্র ভিত্তিক কমিটি গঠনের পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াতের যেকোনো ষড়যন্ত্র ঠেকাতে প্রয়োজনে প্রতিটি কেন্দ্র পাহারা দেবে যুবলীগ। গত সোমবার এ তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিন যবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহে আলম মুরাদ জনতাকে বলেন, বিএনপি-জামায়াত আসন্ন নির্বাচনে যাতে কোনো ধরনের নাশকতা-নৈরাজ্য করতে না পারে, সেদিকে তৃণমূল নেতাকর্মীদের বিশেষ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চেয়ারম্যান করে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করেছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ। কমিটির কো- চেয়ারম্যান মনোনিত করা হয় দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হোসেন তওফিক ইমাম (এইচটি ইমাম) ও সদস্য সচিব হয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্যরা হলেন-দলটির উপদেষ্টা পরিষদ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও দলের সহযোগী সংগঠনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ। এছাড়াও নির্বাচন পরিচালনার জন্য জেলা, উপজেলার নেতাদের নিয়ে নির্বাচনী আসনভিত্তিক কমিটি গঠনে কাজ করছে দলটি। স¤প্রতি অনুৃষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সভায় উপস্থিত একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, কমিটির প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আসনভিত্তিক নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে সংশ্লিষ্ট জেলা, উপজেলা কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকেরা থাকবেন। এরা কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশনা অনুযায়ী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবেন। এই কমিটিগুলো নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকল সেক্টরের কর্মকর্তা ও দলের তৃণমূলের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে কাজ করবেন। দলীয় নেতারা জানান, এরই মধ্যে যেসব আসনে দলীয় কোন্দল প্রকট হয়েছে এবং প্রকাশ্যে দলের মনোনয়নপ্রাপ্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মানববন্ধন, সভা-সমাবেশ, বিক্ষোভ করেছে, সেসব আসনের বিদ্রোহী নেতাদের সাথে যোগাযোগ করা শুরু হয়েছে। পাশাপাশি দলের জন্য যেসব আসন ঝুঁকিপুর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে সেসব আসনেও কাজ করবে পাঁচ সদস্যের এই দল। এছাড়া এই দলটি কেন্দ্রীয়ভাবে দলের প্রচারণার কৌশল নির্ধারণ, মাঠ পর্যায়ের সর্বশেষ অবস্থা শীর্ষ নেতাদের অবহতিকরণসহ কেন্দ্রীয় সমন্বয়ের কাজটি করবে। তারা বলেন, আওয়ামী লীগ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করবে আগামী ১১ ডিসেম্বর। এর আগেই আগামী ৭ ডিসেম্বরের মধ্যে সব ধরনের মতানৈক্য দূর করতে এই নেতাদের নির্দেশনা দিয়েছেন দলের শীর্ষ নেতা। পাঁচ সদস্যের এই দলের নেতৃত্বে রয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক। অন্য চার জন হলেন-যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও বি এম মোজাম্মেল হক। আর এই কমিটিকে সহযোগিতা করবেন দলের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সাত্তার, উপদফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কার্যনির্বাহী সদস্য আনোয়ার হোসেনসহ আরো বেশ কয়েকজন।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনের আগ পর্যন্ত কেন্দ্রীয়ভাবে জাহাঙ্গীর কবির নানকের নেতৃত্বে একটি টিম কাজ করবে। এই টিমের সদস্যরা নির্বাচন করছেন না। এই টিমটি কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচনকেন্দ্রিক সব কাজ মনিটরিং করবেন এবং সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদের অবহতি করবেন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, আমরা এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছি। প্রথমে যেসব আসনের কোন্দল প্রকাশ্যে এসেছে, সেসব আসনের স্থানীয় নেতাদের সাথে আমরা কথা বলছি। তিনি বলেন, স্থানীয় পর্যায়ে অনেক নেতারকর্মীর মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। আলোচনা করলেই এসব সমস্যা মিটে যাবে। মনোনয়ন চূড়ান্ত করার আগেই আমরা সব বিবাদ মিটিয়ে ফেলব। সবাই নৌকার জয়ের জন্য কাজ করব।

এদিকে নৌকার বিজয়ী নিশ্চিত করতে নির্বাচনী মাঠে নামবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রলীগ। বিজয় নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ থেকে শুরু আসন ভিত্তিক কমিটি গঠন করতে চলছে সংগঠনটি। সারা দেশের ৩০০ আসনেই নির্বাচনের জন্য একটি উপ-কমিটি গঠন করবে জেলা ছাত্রলীগ। কিন্তু, কেন্দ্র থেকে উপ-কমিটির অনুমোদন দেয়া হবে। এই কমিটির মাধ্যমে নির্বাচনের সব দিকনির্দেশনা দেওয়া হবে। সমন্বয়কের মাধ্যমে পরিচালনা হবে এই উপ-কমিটিগুলো। আর সমন্বয়কে দিকনির্দেশনাসহ সকল মনিটরিং করবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। প্রতিটি আসনেই একজনকে সমন্বয়কারী করে ১০ সদস্য বিশিষ্ট উপ-কমিটি গঠন করবে। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, গত কয়েকটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মতো বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জাতীয় নির্বাচনের মাঠে অবস্থান করবে। সেই উপলক্ষে আসন ভিত্তিক কমিটি গঠন করা হবে। ৩০০ আসনেই নির্বাচনী উপ-কমিটি গঠন করা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ