প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আশুলিয়ায় স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৬

আমিনুল ইসলাম, আশুলিয়া : আশুলিয়ায় স্বামীকে আটকে রেখে এক নারী পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার মূল হোতাসহ এরই মধ্যে ৬জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষণের শিকার ওই নারীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোররাতে আশুলিয়ার নরসিংহপুর সোনা মিয়া মার্কেট এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- নরসিংহপুর এলাকার মো. জিন্নাহ’র ছেলে জাহিদুল ইসলাম (২২), একই এলাকার শফিকুল ইসলামের ছেলে আজাদ হোসেন (২৪), জলিল সরকারের ছেলে রানা সরকার (২৮), কোণাপাড়া এলাকার আব্দুল সোবহান শেখের ছেলে রবিউল শেখ (২০), একই এলাকার মো. রিয়াজুলের ছেলে রুবেল (২২) ও ঘোষবাগ এলাকার দেলোয়ার হোসেনের ছেলে সাগর হোসেন (২৪)। তবে রেজন ও সোহাগ নামে আরও দুই ধর্ষনকারী পলাতক রয়েছে।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফজিকুল ইসলাম জানান, রোববার সন্ধ্যায় নরসিংহপুর সোনা মিয়া মার্কেট এলাকায় বন্ধুর বাড়িতে স্ত্রীকে নিয়ে বেড়াতে আসেন তার স্বামী। এসময় স্থানীয় ইউপি সদস্য তাহের মৃধার ম্যানেজার রেজন, তার সঙ্গী রবিউলসহ সাত জন ঐ দম্পতিকে আটক করে স্বামী-স্ত্রী কি না সে ব্যাপারে জানতে চায়।

একপর্যায়ে তারা সোনা মিয়া মার্কেট এলাকার নাছিরের বাড়িতে স্বামী ও স্ত্রীকে পৃথক কক্ষে আটকে রাখে। পরে রাতে রেজনসহ তার সঙ্গীয়রা ওই নারীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং দম্পতির পরিবারের নিকট মুঠোফোনে ২০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবী করে।

এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে আশুলিয়া থানায় বিষয়টি জানিয়ে অভিযোগ করা হলে মুক্তিপণের টাকা প্রদানের শর্তে ফাঁদ পাতে পুলিশ। পরে সোমবার রাতে সোনা মিয়া মার্কেট এলাকায় রবিউল ও রুবেল মুক্তিপণের টাকা নিতে আসলে পুলিশের সহায়তায় তাদের হাতেনাতে আটক করা হয়।

পরবর্তীতে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার ভোর রাতে রাতে সোনা মিয়া মার্কেট সংলগ্ন ইয়াপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য তাহের মৃধার অফিস থেকে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত আরো ৪বখাটেকে গ্রেফতার করে পুুলিশ।

এঘটনায় আট জনের নাম উল্লেখ করে আশুলিয়া থানায় একটি ধর্ষণ মামলা (নং-৫) দায়ের করা হয়েছে জানান তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ