প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নারী ব্যালন ডি’অর জয়ীকে মঞ্চেই যৌন হয়রানি!

আক্তারুজ্জামান : ব্যালন ডি’অর মঞ্চে ইতিহাস সৃষ্টির দিনেই তৈরি হল বিতর্ক। এবছরই প্রথমবারের মতো চালু হয়েছে মহিলা ফুটবলারদের ব্যালন ডি‘অর পুরস্কার। প্রথমবার এই পুরস্কার জিতে নিয়েছেন অলিম্পিক লিওঁর নরওয়ের স্ট্রাইকার অ্যাডা হেগেরবার্গ। গত মৌসুমে দুরন্ত ফুটবল খেলেছেন ২৩ বছর বয়সী এই তরুণী। লিঁও-র হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে গোল করে দলকে জেতান।

শুধু তাই নয়, ফরাসি লিগ জয়েও বড় ভূমিকায় ছিলেন তিনি। সোমবার প্যারিসে জমকালো অনুষ্ঠানে ফরাসি ডিজে (ড্যান্স জকি) মার্টিন সলভেইগ পুরস্কার নিতে মঞ্চে থাকা হেগেরবার্গের কাছে জানতে চান, আপনি কি ‘টোয়ার্ক’ জানেন? যা নিয়ে রীতিমতো বিতর্ক দানা বেঁধেছে। এমনকি কেউ কেউ এই ঘটনাকে যৌন হয়রানিও বলছেন।

এখন কথা হলো, কী এই ‘টোয়ার্ক’? ‘টোয়ার্ক’ হল এক ধরণের হিপ-হপ ডান্স। জনপ্রিয় মিউজিকের সঙ্গে যৌন উত্তেজকভাবে কোমর দোলানো। পুরস্কারের মঞ্চে সঞ্চালকের এমন প্রস্তাবে একটু হতচকিত হয়ে যান হেগেরবার্গ। যদিও শুধু জানি না বলেই মঞ্চে ক্ষান্ত থাকেন হেগেরবার্গ। পরে হেগেরবার্গ বলেন, ‘তিনি কোনও দিন নিজেকে একজন পুরুষ ফুটবলারের থেকে আলাদা ভাবেননি। নিজের খেলাতেই বেশী মনযোগী। কিন্তু ওই ধরনের প্রশ্নে তিনি রীতিমতো বিব্রত।’

যদিও কিছুক্ষণ নাচতে হয় ব্যালন ডি’অর জয়ীকে। কিন্তু হেগেরবার্গের চেহারা বলে দিচ্ছিল ব্যাপারটা তিনি খুব একটা উপভোগ করছেন না। এদিকে সলভেইগ ওই প্রস্তাব দেওয়ার পরপরই ঝড় ওঠে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ক্রীড়াঙ্গনের খ্যাতিমান তারকারা সমালোচনা করেছেন সলভেইগের এই আচরণের।

ছবিতে হেগেরবার্গের চেহারাই বলেই দিচ্ছে তিনি ব্যাপারটা ভালোভাবে নেননি। ছবি : দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট

তিনবারের গ্রান্ড স্ল্যামজয়ী ব্রিটিশ টেনিস তারকা অ্যান্ডি মারে ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘ক্রীড়াঙ্গনে যে যৌন হয়রানি এখনো আছে তার আরেকটি কদর্য উদাহরণ। মেয়েদের ক্ষেত্রে এটা এখনো চলছে কেন? এমবাপ্পে ও মদরিচকে কি প্রশ্ন করা হয়েছে? যারা ভাবছেন মানুষ এ ব্যাপার নিয়ে অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে এবং ওটা ছিল ¯্রফে মজা…না, ব্যাপারটা হাস্যকর ছিল না।’

তবে এই ঘটনা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই ক্ষমা চেয়ে নেন স্বয়ং মার্টিন সলভেইগ। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘যারা আমাকে চেনেন গত ২০ বছর ধরে, তারা জানেন যে আমি নারীদের কতটা সম্মান করি।’ জিনিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ