প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জামায়াতে ইসলামীর দ্বিতীয় জন্মের জনক জিয়াউর রহমান : সৈয়দ বোরহান কবীর

খায়রুল আলম : বিএনপি এবং জামায়াতে ইসলামী একই বৃত্তে দুই ফুল। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জামায়াতে ইসলামী ও ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করেছিলেন। জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে গোলাম আজমকে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে আসলেন। এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে এমনটি মন্তব্য করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক সৈয়দ বোরহান কবীর।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান গোলাম আজকে দেশে ফিরিয়ে আনার পরেই এই দেশে জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতি আবার শুরু হয়। স্বাধীনতার পরে জামায়াতে ইসলামের দ্বিতীয় যে জন্ম হয়েছে সেটার জনক হলেন জিয়াউর রহমান। জামায়াতে ইসলামী এবং বিএনপির যোগসূত্র একই জায়গায়। সেই যোগসূত্র হচ্ছেন জিয়াউর রহমান। কাজেই বিএনপি-জামায়াতকে আলাদা করে দেখার কিছু নেই। জামায়াতের লোক ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করলে অবাক হওয়ারও কিছু নেই। বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা বিরোধী যে ধারা, সে ধারায় বিএনপি ও জামায়াত একসাথে কাজ করে। দীর্ঘদিন ধরে এই রাজনীতিটি চলছে। যেহেতু জামায়াতের একটি প্রতীক ছিলো। এখন তাদের নিবন্ধন বাতিল হয়েছে। নিবন্ধন বাতিল হওয়ার কারণে বিএনপি তাদের মহোদয় ভাইকে প্রতীক দিয়ে সহযোগিতা করছে। যারা এটি নিয়ে হতাশ হয়, তারা এই দেশের রাজনীতির ডায়নামিকটিই বোঝেনা। বিএনপি ও জামায়াতের মধ্যে মৌলিক কোনো পার্থক্য নেই। দুটি দলেরই একই চিন্তা চেতনা, একই আদর্শ এবং উদ্দেশ্যে পরিচালিত রাজনৈতিক দল। তারা কখনোই এই দেশের মানুষের জন্য, এই দেশের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করে না। তাই আশা করি, এই দেশের জনগণ অতীতের মতো করে বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীকে আগামী নির্বাচনেও প্রত্যাখ্যান করবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ