প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গানে গানে আইয়ুব বাচ্চু স্মরণ

বাংলাদেশ প্রতিদিন : নতুনত্ব ও বৈচিত্র্য এনে এদেশের ব্যান্ড সংগীতকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরা সদ্য প্রয়াত আইয়ুব বাচ্চুকে নানা আয়োজনে স্মরণ করা হয়েছে। গতকাল ‘বামবা’ আয়োজিত শ্রদ্ধাঞ্জলি অনুষ্ঠানে তাকে গভীর শ্রদ্ধায় মূল্যায়ন করেন দীর্ঘদিনের সহকর্মী, বন্ধু, শিল্পী ও গানের মানুষরা। সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় ‘ফেয়ারওয়েল ট্রিবিউট টু আইয়ুব বাচ্চু’ নামের এ অনুষ্ঠান।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। ব্যান্ড সংগীতশিল্পী মাকসুদের সঞ্চালনায় আইয়ুব বাচ্চুকে নিয়ে কথা বলেন সংগীতশিল্পী রফিকুল আলম, বামবার সভাপতি ও মাইলস’এর হামিন আহমেদ, শাফিন আহমেদ, ফিডব্যাকের ফুয়াদ নাসের বাবু, মাইলস’ এর মানাম আহমেদ, দলছুট’এর বাপ্পা মজুমদার প্রমুখ।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, আইয়ুব বাচ্চু এদেশের ব্যান্ড সংগীতকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। সবসময় প্রাণোচ্ছ্বল এই শিল্পী অনেক বড় মাপের একজন মানুষ ছিলেন। খুব সহজেই সবাইকে আপন করে নেওয়ার মতো গুণ ছিল তার মধ্যে। আইয়ুব বাচ্চুর অনেক স্বপ্ন ছিল, সে স্বপ্নগুলো বাস্তবায়নে আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তার চলে যাওয়াতে আমাদের ব্যান্ড সংগীতের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল। তার গানের মধ্য দিয়ে তিনি আমাদের মাঝে অনেক দিন বেঁচে থাকবেন।

দুই পর্বে বিভক্ত এ অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে আইয়ুব বাচ্চু ও এলআরবির ১৫টি গান গেয়ে শোনান বিভিন্ন ব্যান্ড দলের সদস্যরা। গানগুলোর মধ্যে ছিল ‘এখন অনেক রাত’ ‘রাতের তারার মতো’ ‘চাঁদ মামা’ ‘ফেরারি মন’, ‘গতকাল রাতে’ ‘সুখেরই পৃথিবী’ ‘ঘুম ভাঙা শহরে’ ‘দিশেহারা’ ‘ময়না’ ‘রূপালী গিটার’ ‘হাসতে দেখো’ ‘বাংলাদেশ’ ‘নীল বেদনা’ ও ‘ঘুমন্ত শহরে’। সবশেষে সব কণ্ঠ এক হয়ে ‘চলো বদলে যাই’ গানটি গাওয়ার মধ্য দিয়ে শেষ হয় এ আয়োজন। অনুষ্ঠানের শুরুতে আইয়ুব বাচ্চুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এরপর আইয়ুব বাচ্চুকে নিয়ে ‘বামবা’ নির্মিত একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ