প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ক্ষমতাসীন দলের বিজয় নিশ্চিত করতেই মনোনয়নপত্র বাতিল

দিনকাল : বাছাইতে জোটের ৮০ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করে সরকারি দলের জয়লাভকে এগিয়ে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ২০ দলীয় জোট। গতকাল রবিবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জোটের বৈঠকের পর প্রধান সমন্বয়ক ও এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ এ অভিযোগ করেন। সন্ধ্যা ৬টা থেকে ৭টা পর্যন্ত এই বৈঠক হয়। : তিনি বলেন, রবিবার যে বাছাই ছিল সেখানে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ প্রায় ৮০ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। আমি বলব, এটা বিরোধী দলকে বের করে দেয়া হয়েছে, ভেকেট করে দেয়া হয়েছে।

অর্থাৎ তাদের (সরকারি দল) জয়লাভ করার পথটা এগিয়ে রেখেছে। এভাবে হলে বিরোধী দলে আমরা যারা আছি আমাদের পক্ষে শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে টিকে থাকা হয়তো সম্ভব হবে না। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে না থাকার বিষয়টি ব্যাখ্যা করতে বললে অলি বলেন,  দেখুন আমরা তো নির্বাচন করতে চাই, নির্বাচনে আছি। এখন প্রার্থী যদি না থাকে তাহলে কাকে নিয়ে নির্বাচন করব? ইতিমধ্যে তো ৮০ জন নেই।  সরকার তো কাউকে ঘরে থাকতে দিচ্ছে না। প্রতিদিন বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচেছ।

নির্বাচনের পরিবেশ মোটেও নাই, লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নাই। এভাবে ভয়ভীতি ও গ্রেফতার হলে আপনারাই বলুন আমরা কীভাবে নির্বাচন করব। এ ব্যাপারে আমরা সরকারের কাছ থেকে স্পষ্ট ঘোষণা চাই। : এই সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, কর্নেল অলি সাহেব বলেছেন আমরা নির্বাচন করতে চাই, নির্বাচনে আছি। নির্বাচন করবো ইনশাল্লাহ। নানা অজুহাতে প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে অভিযোগ করে অলি আহমদ বলেন, আমরা জাতির কাছে ওয়াদা করেছিলাম আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো। সেই অনুযায়ী ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে নমিনেশন জমা দেয়া হয়েছে। তবে দুঃখের সাথে বলতে হয়, নমিনেশন জমা দেয়ার পূর্বে ও পরে জোটের অনেক নেতাকে মিথ্যা মামলা দেখিয়ে জেলে নিক্ষেপ করা হয়েছে। এর মূল উদ্দেশ্যই হচ্ছে যাতে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকে। এছাড়া রবিবার বেগম খালেদা জিয়াসহ ৮০ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তার মধ্যে অনেক ছিল একই ধরনের।

যেমন মেয়র ও উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন তারা পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে তার রিসিভ কপি মনোনয়নপত্রের সাথে দেয়া হয়েছে। পদত্যাগ গ্রহণ করবে কি করবে না এটা সরকারের ব্যাপার এই অজুহাত দেখিয়ে অনেকের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। আবার অনেককে বলা হয়েছে যে, আপনার নাম ঋণ খেলাপির মধ্যে আছে। আদৌ তাদের কখনো ঋণ নেননি, অথচ খেলাপির তালিকা তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আবার অনেকে সরকারি বিধি বিধান মেনে ঋণ পুনঃতফসিলিকরণ করেছে এই ধরনের অনেককেও নির্বাচনের অযোগ্য বলে ঘোষণা করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, বিএনপির মহাসচিব প্রায় ৬শর উপরে দস্তখত করেছেন। দু-একটা দস্তখত এদিক-ওদিক বাঁকা হতেই পারে। এটা তো সিল মেরে করেননি, হাতেই করতে হয়েছে। এটা রিটার্নিং অফিসারের উচিত ছিল ৫ মিনিট সময় দিয়ে বিএনপির কাছ থেকে সঠিক তথ্যটা নেয়া অথবা আমরা প্রত্যেকটা দলের পক্ষ থেকে যারা নিজের দলের প্যাডে সিল দিয়ে দস্তখত দিয়ে নির্বাচন কমিশনে পাঠিয়েছি, সেগুলোর সাথে মিলিয়ে দেখা।

কোনো কিছু না করে একতরফাভাবে ২০ দলীয় জোটকে ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য ৮০ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। : নির্বাচন কমিশনের ভূমিকার সমালোচনা করে অলি বলেন, নির্বাচন কমিশনের কাছে আমরা ১৩টা পয়েন্ট নিয়ে গিয়েছিলাম। তারা গ্রহণও করেছিল। কিন্তু অদ্যাবধি কোনো বিষয়ে তারা ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এই কমিশনের কোনো ক্ষমতা আছে বলে আমরা মনে করি না। তারা বোধহয় পোস্টঅফিসের কাজ করছে। সরকার আদেশ দিচ্ছে, তারা সেটা পালন করছে জনগণকে ধোঁকা দেয়া হচ্ছে। : অলি আহমদ বলেছেন, প্রতিদিন গণহারে নির্বাচনি এলাকায় বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। কিছু কিছু স্থানে ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের ভয় দেখাচ্ছে পুলিশ। বর্তমান সরকারের অধীনে অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আমরা সেটা বিশ্বাস করেছিলাম। কিন্তু কার্যকলাপ যা দেখছি তা আদৌ সন্তোষজনক নয়।

বিরোধী দলে আমরা যারা আছি আমাদের পক্ষে সে পর্যন্ত টিকে থাকাও সম্ভব হবে না। : এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলির সভাপতিত্বে বৈঠকে বিএনপির নজরুল ইসলাম খান, খেলাফত মজলিশের মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক, জামায়াতে ইসলামীর আবদুল হালিম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা নুর হোসাইন কাশেমী, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, মুসলিম লীগের এএইচএম কামরুজ্জামান খান, ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা আবদুল করীম, ন্যাপ-ভাসানীর আজহারুল ইসলাম, জাগপার মহাসচিব খোন্দকার লুৎফর রহমান, এনপিপির মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, ন্যাপের এম এন শাওন সাদেকী, ডিএলের সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, লেবার পার্টির ফারুক রহমান, ইসলামিক পার্টির আবুল কাশেম, এনডিপির মো. আবু তাহের, জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) শফিউদ্দিন ভুঁইয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ