প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্ববিদ্যালয় শেষে ইমামতি, তবুও এমন ভয়ংকর বোকামি!

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ :  বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স ও মাস্টার্স শেষ করেছেন। টাকা ছাড়া কোথাও চাকরি হচ্ছে না। তাই মসজিদে ইমামতি করেছেন। এরই মাঝে নম্র-ভদ্র সেই ছেলেটি এমন ভয়ংকর বোকামির পথ বেছে নেবেন তা কেউ মেনে নিতে পারছেন না। এদিকে চাকরির টেনশন আর অন্যদিকে সাবেক গার্লফ্রেন্ডের ফিরে আসার চাপ নিতে পারেননি তিনি। হতাশার মাঝেই ভয়ংকর পথে পা বাড়িয়েছেন তিনি। বোকার মতো চলে গেছেন না ফেরার দেশে। ইসলামের পরিবেশে থেকেও এমন বোকামি মেনে নিতে পারছেন না সহপাঠী ও স্বজনরা। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-কোরআন বিভাগের ছাত্র আজিমুদ্দিনের গল্প এটি। বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন তিনি। শনিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যু বরণ করেন। তিনি ঝিনাইদহের মহিষাকুন্ডু গ্রামের আব্দুল হান্নান মহুরির ছেলে।

সহপাঠীরা জানান, আজিমুদ্দিন নম্র ও ভদ্র স্বভাবের ছিল। তবে সে চাকরি নিয়ে বেশ টেনশনে ছিল। যেখানেই ভাইভা দিয়েছে তার কাছে কোন না কোনভাবে টাকা চাওয়া হয়েছে। তবে সে এভাবে চলে যাবে এটা তারা মেনে নিতে পারছেন না।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর মহিউদ্দিন জানান, শুনেছি চাকরি না পেয়ে আজিমুদ্দিন আত্মহত্যা করেছে। ছেলেটি খুব নম্র ভদ্র হিসেবে এলাকায় পরিচিত। বেশে কিছুদিন তিনি পঞ্চগ্রাম জামে মসজিদে তিনি ইমামতিও করেছেন বলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মহিউদ্দিন উল্লেখ করেন।

প্রতিবেশীরা জানান, পাবনার একটি মেয়ের সাথে তার সম্পর্ক ছিল। দুই বছর আগে মেয়েটির বিয়ে হয়ে যায়। গত বৃহস্পতিবার মেয়েটি আজিমুদ্দীনের সাথে দেখা করে তার কাছে ফিরে আসার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু চাকরি না থাকায় টেনশনে পড়ে যায় আজিমুদ্দিন। একদিকে প্রেম অন্যদিকে প্রেমের টেনশনের কারণে ভয়ংকর পথ বেছে নিয়েছেন তিনি।

আজিমুদ্দিনের দাদা আব্দুল মালেক জানান, চাকরি না পেয়ে হতাশায় ভুগতে থাকেন আজিমুদ্দিন। এক পর্যায়ে বৃহস্পতিবার তিনি বিষপান করেন। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে শনিবার আজিমুদ্দিন মারা যায়। তিনি আরও জানান, আল-কোরআন থেকে অনার্স মাষ্টার্স পাস করার পর আজিমুদ্দিন ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসকের দপ্তরসহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরির আবেদন করেন। কিন্তু কোন জায়গায় টাকা ছাড়া তার চাকরি হয়নি।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ