প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খালেদা জিয়ার মাসিক আয় ১২ লাখ টাকা

অনলাইন ডেস্ক : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মাসিক আয় সাড়ে ১২ লাখ টাকার বেশি। এ ছাড়া তিনি বাড়ি ভাড়া বাবদ ঋণ দেখিয়েছেন ১ কোটি ৫৮ লাখ এবং শিক্ষাগত যোগ্যতায় উল্লেখ করেছেন স্বশিক্ষিত। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রার্থীর দাখিল করা হলফনামায় এই তথ্য পাওয়া গেছে।

বেগম খালেদা জিয়া তার হলফনামায় লিখেছেন-স্বামীর নাম শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীর উত্তম, মাতার নাম তৈয়বা মজুমদার। ঠিকানায় লিখেছেন বাড়ি নম্বর-১, রোড নম্বর-৭৯, গুলশান-২ (বর্তমানে কেন্দ্রীয় কারাগার, নাজিমুদ্দিন রোড ঢাকা)। শিক্ষাগত যোগ্যতার ঘরে তিনি লিখেছেন-স্বশিক্ষিত।

মামলার বিবরণীতে লিখেছেন, তার বিরুদ্ধে ৩৪টি মামলা দায়ের হয়েছিল। এর মধ্যে ৭টি মামলা বিচারাধীন। চারটি মামলা পেন্ডিং আর অন্যগুলো স্থগিত রয়েছে। পেশার বিবরণীতে লিখেছেন, বাংলাদেশ জাতীয়বাদী দলের সাংগঠনিক কার্যাবলী পরিচালনা করেন।

এ ছাড়া বেগম খালেদা জিয়া বছরে বাড়ি/অ্যাপার্টমেন্ট/দোকান বা অন্যান্য ভাড়া থেকে আয় করেন ৬৭ লাখ ৩১ হাজার ৩১৪ টাকা। শেয়ার, সঞ্চয়পত্র ব্যাংকে আমানত থেকে আয় ৮৫ লাখ ৯ হাজার ৮১৩ টাকা। তার ওপর নির্ভরশীলদের আয় প্রজোজ্য নয় বলে উল্লেখ করেছেন। বছরে তার মোট আয় ১ কোটি ৫২ লাখ ৪১ হাজার ১২৭ টাকা। মাসে তার আয় ১২ লাখ ৭০ হাজার ৯৩ টাকা ৯২ পয়সা। নগদ হাতে আছে ৫০ হাজার ৩০০ টাকা। যানবাহন হিসেবে ৪৮ লাখ ৬৫ হাজার টাকার দুটি টয়োটা জিপ রয়েছে। সোনা আছে ৫০ তোলা। এ ছাড়া ৫লাখ টাকার ইলেকট্রনিক সামগ্রী এবং ২ লাখ ৬০ হাজার টাকার আসবাব রয়েছে।

অস্থাবর সম্পদের মধ্যে আছে ১২ হাজার ৩০০ টাকা মূল্যর ৮ শতাংশ অকৃষি জমি। অর্জনকালীন ১০০ টাকা মূল্যে গুলশানে একটি বাড়ি আছে। আর পাঁচ টাকা মূল্যের ক্যান্টমেন্টের বাড়ি দখলে নেই। বাড়ি ভাড়া বাবদ তার ঋণ আছে ১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। ব্যাংকে তার বিরুদ্ধে কোনো ঋণ নেই। বেগম খালেদা জিয়ার ফেনী-১ ও বগুড়া-৬ ও ৭ আসন থেকে নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

৩০ ডিসেম্বর সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই। ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহার। আর ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ