প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কাদের সিদ্দিকীর প্রার্থিতা বাতিলের আশঙ্কা!

বাংলাদেশ প্রতিদিন : রোববার আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রার্থিতা বাছাই করবে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে নির্ধারণ হবে আসন্ন নির্বাচনে কারা লড়বেন। এই যাচাই-বাছাইয়ে ইসির আইন না মানতে পারায় ভোট থেকে ছিটকে যাবেন অনেক প্রার্থী।

আর এই ছিটকে পড়া প্রার্থীদের তালিকায় কৃষক শ্রমিক ও জনতা লীগের প্রধান কাদের সিদ্দিকীর নাম চলে আসে কিনা এ শঙ্কায় রয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা। দলটির তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আশঙ্কা ঋণের কারণে আটকে যেতে পারে কাদের সিদ্দিকীর প্রার্থিতা।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, যদি কোনো কারণে কাদের সিদ্দিকীর প্রার্থিতা বাতিল হয়; তাহলে তার মেয়ে কাজী আশরাফ সিদ্দিকী টাঙ্গাইল-৮ আসনে কৃষক শ্রমিক ও জনতা লীগের পক্ষ থেকে নির্বাচন করবেন।

আরো জানা গেছে, প্রথমবারের মতো জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জোটগতভাবে নির্বাচন করতে যাচ্ছে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ। সেক্ষেত্রে দলীয় প্রধানের অভিজ্ঞ ও জনপ্রিয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করতে পারলে মোটে স্বস্তিতে থাকবে না দলটি।

কারণ, মাত্র ২ মাস আগেও রাজনৈতিক অঙ্গনে কাজী আশরাফ সিদ্দিকী নাম আসবে- এ বিষয়টি কোনো নেতাকর্মী চিন্তাও করতে পারেনি। ফলে কাজী আশরাফ গুরুত্বপূর্ণ এই নির্বাচনে রাজনৈতিক কৌশল কীভাবে সামলাবেন তা নিয়ে দলটির নেতাকর্মীদের মধ্যে এক ধরনের সংশয় দেখা দিয়েছে।

শনিবার টাঙ্গাইল-৮ আসনের কৃষক শ্রমিক ও জনতা লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সখীপুর উপজেলায় দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অবস্থানরত বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী সঙ্গে কথা হয়। কাদের সিদ্দিকীর প্রার্থিতা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তারা এখনো নির্বাচনের মাঠের রাজনীতির কৌশল নির্ধারণ করতে পারছেন না। কেননা দলীয় প্রধানের প্রার্থিতা না থাকলে তার মেয়েকে নিয়ে কি কৌশল হবে তা তিনিই ঠিক করবেন। এজন্য ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে সখীপুর উপজেলা কৃষক শ্রমিক ও জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার শামীম বলেন, দলীয় প্রধানের প্রার্থিতা নিয়ে আমরা কিছুটা চিন্তিত। তবে আশা করছি উনিই প্রার্থী হবেন। তাছাড়া আমাদের বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণ করা আছে তার মেয়ে কাজী আশরাফ সিদ্দিকীকে নিয়ে। কেননা সিদ্দিকী পরিবারের সঙ্গে টাঙ্গাইলবাসীর আবেগ অনুভূতি জড়িত রয়েছে।

তবে দলটির একটি সূত্রে জানা গেছে, কাদের সিদ্দিকীর প্রার্থিতা টিকে থাকার সম্ভাবনা ক্ষীণ। সেক্ষেত্রে রাজনীতিতে অনভিজ্ঞ কাজী আশরাফ সিদ্দিকীকে দিয়ে টাঙ্গাইল-৮ আসন জেতা দলটির জন্য কঠিন এক চ্যালেঞ্জ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নেতা বলেন, দলীয় প্রধানকেই আমরা মনে প্রাণে আসন্ন নির্বাচনে চাই। তবে তার পরিবর্তে তার মেয়ে যোগ্য প্রার্থী নয়। সেক্ষেত্রে দলের মধ্যে আরও অনেক যোগ্য নেতা ছিল যাদের মনোনয়ন দেওয়া যেত। আর তাই বঙ্গবীরের প্রার্থিতা বাতিল হলে সিট হয়ত আওয়ামী লীগের হাতে যেতে পারে।

উল্লেখ্য, টাঙ্গাইল-৮ আসনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৬৪৫ জন। বিএনপির হেভিয়েট প্রার্থী বলে পরিচিত দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান। তবে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী কাদের সিদ্দিকী থাকায় তিনি এবার নির্বাচন করছেন না।

অন্যদিকে এই আসনে এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ