প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গণমাধ্যম কর্মীদের প্রতি জাপার অনুরোধ

মো. ইউসুফ আলী বাচ্চু : সম্প্রতি জাতীয় পার্টির শীর্ষ নেতাদের হেয় প্রতিপন্ন করতে কিছু সংখ্যক গণমাধ্যম উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে ভূয়া ও তথ্যহীন সংবাদ পরিবেশন হচ্ছে। এতে জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীদের মাঝে এক ধরনের ভুল বোঝাবুঝি এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। তাই গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ-প্রচার ও সম্প্রচারের পূর্বেই বিষয়টি নিশ্চিত হতে অনুরোধ করা যাচ্ছে।

বেশ ক’দিন ধরে কয়েকটি গণমাধ্যমে জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক এমপি শওকত চৌধুরীর বরাত দিয়ে বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরছেন। যিনি জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নীলফামারী-০৪ আসনে নির্বাচন করছেন। তার বরাত দিয়ে সংবাদ পরিবেশেনের কারণে সৈয়দপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন শওকত চৌধুরী। এছাড়া নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেও তিনি মিথ্যে সংবাদ পরিবেশনের প্রতিবাদ জানিয়েছেন। শওকত চৌধুরী পার্টিকে জানিয়েছেন একটি অসৎ উদ্দেশ্য থেকেই তার বরাত দিয়ে মিথ্যে সংবাদ পরিবেশন করা হচ্ছে।

কাজী মামুনুর রশিদ জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা। এবার ব্রাক্ষনবাড়িয়া-০৫ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তার বরাত দিয়ে মিথ্যে সংবাদ পরিবেশনের প্রতিবাদে প্রতিবাদলিপি সংশ্লিষ্ট পত্রিকায় দিয়ে রিসিভ করিয়ে এনেছেন। তিনিও জানান দলের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টির উদ্দেশ্যেই মিথ্যে ও উদ্দেশ্যমূলক সংবাদ পরিবেশন করা হচ্ছে।

দলটির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু জানিয়েছেন, তার বরাত দিয়ে কয়েকটি গণমাধ্যমে মিথ্যে, বানোয়াট এবং উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে। অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু জানান গণমাধ্যমের কোন কর্মীর সাথেই কথা হয়নি তার। প্রেসিডিয়াম সদস্য সফিকুল ইসলাম সেন্টু পদত্যাগ করেছেন, এমন গুজবও গণমাধ্যম কর্মীদের মাঝে ছড়িয়েছিলো এক কুচক্রি মহল। এ প্রসঙ্গে সফিকুল ইসলাম সেন্টু বলেন, আমি জাতীয় পার্টিতে ছিলাম, আছি এবং থাকবো। যারা মিথ্যে অপবাদ দিয়ে পার্টির মহাসচিবসহ শীর্ষ নেতাদের হেও প্রতিপন্ন করতে চায়, তারা জঘন্য কাজ করছে।

কয়েকটি পত্রিকা সংবাদের শিরোনাম করেছে জাতীয় পার্টি অফিসে তালা। কিন্তু সংবাদের ভেতরে উল্লেখ ছিলোনা কে বা কারা তালা ঝুলিয়েছে। প্রকৃত পক্ষে জাতীয় পার্টি অফিসে কেউই তালা ঝুলায়নি। আবার জাতীয় পার্টি অফিসে ভাংচুড় বা পার্টি মহাসচিব অবরুদ্ধ এ ধরনের সংবাদ একেবারেই মনগড়া। আবার ঘটনার সময়ে যারা বিভিন্ন এলাকায় মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছে, তাদের বরাত দিয়েও সংবাদ এসেছে কোন কোন গণমাধ্যমে। যা একেবারেই দুঃখজনক।

পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেছেন গণমাধ্যম কর্মীরা যেন, মিথ্যে, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত তথ্যে বিভ্রান্ত না হন। মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে কেউ কেউ মিথ্যে ও ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলেছেন, যার সাথে সত্যের কোন মিল নেই। বলেন যারা জতীয় পার্টিকে বিতর্কীত করতে অপচেষ্টা করছে, তারা সফল হবে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ