প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজনীতির রান্নাঘরে খিচুড়ির মশলাগুলো ভেজাল : সুভাষ সিংহ রায়

জুয়েল খান: সাপ্তাহিক বাংলাবিচিত্রার সম্পাদক সুভাষ সিংহ রায় বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গণভবনে সাবেক সেনা কর্মকর্তারা দেখা করেছেন এটা কোনো রাজনৈতিক সাক্ষাৎ নয়, ব্যক্তিগত সাক্ষাৎ। এতে কোন ধরনের আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়নি। শুক্ররার রাতে ডিবিসি নিউজের এক আলোচনায় তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপির নেতারা বলেছেন লাখ-লাখ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে, এটা শুধু বলার জন্য বলছে আসলে এটা অবাস্তব এবং ভিত্তিহীন কথা। এত মানুষ গ্রেফতার করলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যে তালিকা দিয়েছেন সেখানে এতো অল্প লোকের তালিকা কেন? -প্রশ্ন তোলেন সুভাষ সিংহ রায়।

তিনি জানান, ২০০৮ সালে প্রধানমন্ত্রী তার নির্বাচনি ইশতেহারে বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে পুরো নির্বাচন কমিশন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বিচ্ছিন্ন থাকবে। তখনও নির্বাচন কমিশন তৎকালীন সময় নির্বাচন কমিশন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীনে, ফখরুদ্দিনের অধীনে ছিলো। কিন্তু তিন-চার সপ্তাহের ব্যবধানে নির্বাচন কমিশন থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে সম্পূর্ণ আলাদা করা হয় এই কৃতিত্ব শেখ হাসিনার, তিনি তার কথা রেখেছিলেন।

নির্বাচনে সমতল ভূমির জন্য বিএনপি যে কথা বলছে তার এক উদাহারণ দিয়ে সুভাষ সিংহ রায় বলেন যে, বিএনপির ৭-৮ জন নেতা টেলিভিশনে কথা বলেছেন, কিন্তু আওয়ামী লীগের মাত্র একজন নেতা কথা বলেছেন ওবায়দুল কাদের, তার মানে অবশ্যই সমতল রাজনৈতিক পরিবেশ তৈরি হয়েছে বলেই নিএনপির নেতারা কথা বলতে পারছেন। অভিযোগ এবং পাল্টা অভিযোগে আমরা অভ্যস্ত।

তিনি আরো বলেন, নির্বাচন কমিশন সংস্কারের প্রথম দাবি করেছিলেন শেখ হাসিনা। কারণ ১ কোটি ২৩ লাখ ভুয়া ভোটার ছিলো এবং ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।