প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অধিক শর্করা জাতীয় খাবার নিয়ন্ত্রণে কমবে লিভার রোগের সংক্রমণ : ডা. শাহিনুল আলম

তানজিনা তানিন : বাংলাদেশে প্রায় সাড়ে চার কোটি লোক ফ্যাটি লিভার রোগে আক্রান্ত। অধিক শর্করা জাতীয় খাবার খাওয়া এ রোগ বেড়ে যাওয়ার মূল কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজের হেপাটোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাহিনুল আলম।
এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ রোগের আরও কারণ উল্লেখ করে বলেন, এ রোগ সাধারণত মোটা ও ডায়বেটিস আক্রান্তদের বেশি হয়। আমাদের দেশে বয়স্ক ও শিশুদের মোটা হওয়ার প্রবণতা অনেক বেড়েছে। উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা এসেছে। তবে অধিক খাদ্য গ্রহণ ও আরামপ্রিয়তা মোটা হওয়ার অন্যতম কারণ। যারা অফিসে বা বাসায় ৮ ঘণ্টার বেশি বসে থাকে তাদেরও লিভার সংক্রান্ত রোগের প্রবণতা বেড়েছে।
তিনি বলেন, বাচ্চারা মুটিয়ে যাচ্ছে কারণ, তারা মাঠের অভাবে খেলাধুলা করতে পারছে না, অধিক ফাস্ট ফুড খাচ্ছে। ফলে শরীরে চর্বি বেড়ে যাচ্ছে। দুই ধরনের ফ্যাটি লিভার হয়। একটি লিভার ডেমেজ করে, অপরটি সাধারণভাবে শরীরে থাকে, লিভার ডেমেজ করে না। তাছাড়া বংশগত কারণেও এ সমস্যা হতে পারে।

ফ্যাটি লিভার থেকে বাঁচার উপায় হিসেবে তিনি বলেন, আমেরিকা, ইউরোপহ বিভিন্ন দেশের লিভার বিষয়ক গবেষকরা এ রোগ থেকে মুক্তির কিছু উপায় চিহ্নিত করেছেন। আক্রান্তদের ৭-১০ শতাংশ ওজন কমানো ও নিয়মিত ব্যায়াম প্রথম চিকিৎসা। ওজন কমাতে হলে ভাত, আলুসহ শর্করা জাতীয় খাদ্য কম খেতে হবে। তাছাড়া সকল খাদ্যে আনতে হবে সু-নিয়ন্ত্রণ। শর্করা জাতীয় খাবার ৫০ শতাংশ কমিয়ে শাক-সবজি খাওয়া বাড়াতে হবে। রোগ নিয়ন্ত্রণের আরেকটি উপায় হলো কাজের মধ্যে ব্যায়াম করা। বিশেষজ্ঞরা ব্যায়ামের মধ্যে হাঁটাকে অন্যতম কার্যকরি বলে উল্লেখ করেছেন। তাদের মতে, ঘণ্টায় ৬ কিলোমিটার বেগে সপ্তাহে ৫ দিন হাঁটলে ওজন না কমলেও তা লিভারের জন্য উপকার হবে।
যারা মোটা নয় কিন্তু ফ্যাটি লিভার রোগে আক্রান্ত, তাদেরও কিছুটা ওজন কমাতে হবে। সেজন্য নিয়ন্ত্রিত খাবার খাওয়া ও ব্যায়াম করা অত্যন্ত জরুরি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত