প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আনিসুল হকের অভাব সত্যিই অপুরণীয়

প্রভাষ আমিন : বিশিষ্ট কেউ মারা গেলে আমরা লিখি, ‘জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে’। একভাবে ভাবলে সব মৃত্যুর ক্ষতিই অপূরণীয়। একজন মানুষের অভাব কখনোই আরেকজন পূরণ করতে পারে না। একজন রিকশাচালকও তার পরিবারের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মানুষ। তবে সাম্প্রতিক সময়ে যার মৃত্যু সত্যি অপূরণীয়, তিনি আনিসুল হক। আরেকটু পেছনে গেলে হুমায়ুন আহমেদের মৃত্যুও অপূরণীয় ক্ষতির কারণ ছিল। তারা যদি বার্ধক্যে মারা যেতেন, কষ্ট হয়তো পেতাম, তবে আফসোস হতো না। আনিসুল হক ও হুমায়ুন আহমেদের আরো অনেক কিছু দেয়ার সামর্থ্য ছিল।

আনিসুল হকের মৃত্যুর একবছর পরও আমার অাফসোস যায় না। মাত্র দুই বছরের মেয়রশিপে তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন আন্তরিকতা থাকলে ঢাকার মত সমস্যাসঙ্কুল, জনবহুল নগরীকেও বদলে দেয়া সম্ভব। আহা, যদি আনিসুল হক পুরো মেয়াদ দায়িত্ব পালন করতে পারতেন, না জানি ঢাকা আরো কতটা বদলে যেতে পারতো। নির্বাচনী প্রচারণার সময় তিনি ঢাকাকে সিঙ্গাপুর বানিয়ে ফেলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। আমার প্রত্যাশা অবশ্য অত বেশি ছিল না। তাকে বলেছিও, সিঙ্গাপুর লাগবে না, খালি আরেকটু সবুজ, আরেকটু পরিচ্ছন্ন, আরেকটু বাসযোগ্য হলেই আমি খুশি। শুনে তিনি মুচকি মুচকি হাসতেন, আর বলতেন, কয়টা দিন সময় দেন, দেখবেন, ঢাকাকে আমি আসলেই বদলে দেবো। পুরোটা বদলাতে পারেননি বটে। কিন্তু বদলের যে শুরুটা দেখিয়েছিলেন, তাতেই আমরা আশায় বুক বেধেছিলাম, তাতেই এত আফসোস। আফসোসটা যে জেনুইন, গত একবছরে তা আরো বেশি করে প্রমাণিত। কেউ একজন নতুন আনিসুল হক তো হতে পারেনইনি, ধরে রাখতে পারেননি আনিসুল হকের অর্জনগুলোও।

শুক্রবার বনানী কবরস্থানের গেটে আনিসুল হকের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাঁকে স্মরণ করতে এক অভিনব কর্মসূচি পালন করে গ্রিন সেভার্স। তারা একটি ভ্রাম্যমান গাছের হাসপাতাল বানিয়েছে। গাছের অসুখ হলে এই হাসপাতাল ছুটে যাবে সেখানে। গ্রিন সেভার্সের প্রতিষ্ঠাতা আহসান রনি বললেন, ঢাকার সাড়ে চার লাখ ছাদে বাগান করা গেলে সাড়ে চার কোটি বর্গফুট জায়গা সবুজ করা সম্ভব। আর ছাদে বাগান করার জন্য গ্রিন সেভার্স পাশে থাকবে। যিনি ঢাকাকে আরো সবুজ করার স্বপ্ন দেখতেন, তাঁকে স্মরণ করার জন্য গাছের হাসপাতালের চেয়ে ভালো আর কী হতে পারে।

আনিসুল হক ঘুমিয়ে স্বপ্ন দেখতেন না। তার স্বপ্ন তাঁকে জাগিয়ে রাখতো, তাড়িয়ে বেড়াতো। তিনি তার স্বপ্ন সঞ্চারিত করতে পেরেছিলেন আমাদের মধ্যেও। আনিসুল হকের স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করার মত, নতুন স্বপ্ন দেখার মত নেতা কি আর আমরা পাবো না?

২. রিপোর্টার্স ইউনিটির নির্বাচন হয় প্রতিবছর ৩০ নভেম্বর। বনানী থেকে সোজা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে যাই ভোট দিতে যাই। আমরা ভোট দিয়ে নেতা নির্বাচন করতে চাই, কিন্তু আসলে নির্বাচিত করি চাঁদা আদায়কারী। গতবার লিখেছিলাম, এবার লিখছি। কারণ পরিস্থিতির খুব বেশি উন্নতি হয়নি। রিপোর্টার্স ইউনিটির নেতাদের চাঁদাবাজি করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। রিপোর্টার্স ইউনিটির বছরে খরচ প্লাস মাইনাস তিন কোটি টাকা। ক্যান্টিনে সাবসিডি রেটে খাওয়া, পিকনিক ইত্যাদিতে বড় খরচ হয়। হল ভাড়া থেকে আয় হয় এক কোটি টাকা। চাঁদাবাজি না করলে বাকি টাকাটা আসবে কোত্থেকে? লেখা থাকে, বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের অনুদান। শব্দটা যাই হোক, আসলে তো চাঁদাই। বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান রিপোর্টারদের হাতে রাখতে চায় বলেই রিপোর্টার্স ইউনিটিতে টাকা দেয়। অনুদান কত হবে, সেটা নির্ভর করে রিপোর্টার্স ইউনিটির প্রেসিডেন্ট বা সেক্রেটারির দক্ষতার ওপর। যিনি যত বেশি অনুদান বা চাঁদা আনতে পারবেন, তিনি তত সফল। আমরা আসলে ভোট দিয়ে নেতা নয়, চাঁদা আদায়কারী নির্বাচিত করি।

আমার দুটি পরামর্শ, প্রথম কথা হলো হল ভাড়া বাড়িয়ে হলেও আয় বাড়াতে হবে। আর ক্যান্টিনে খাবার দাম বাড়িয়ে হলেও সাবসিডি কমাতে হবে। রিপোর্টার্স ইউনিটির নিয়মিত প্রকাশনা থেকে বিজ্ঞাপন খাতে আয় বাড়াতে হবে। পিকনিক করলে ছোট পরিসরে করতে হবে, প্রয়োজনে বাদ দিতে হবে। যেভাবেই হোক আয় বাড়িয়ে, ব্যয় কমিয়ে রিপোর্টার্স ইউনিটিকে নিজের পায়ে দাঁড় করাতে হবে। অনুদান-নির্ভরতা কমাতে হবে। সম্ভব হলে শূন্য করে ফেলতে হবে। আমরা নেতা চাই, চাঁদা আদায়কারী তথা চাঁদাবাজ চাই না। নতুন কমিটির জন্য আগাম শুভেচ্ছা।

৩. শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে ঢাকা টেস্ট। টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ দিন শেষ করেছে ৫ উইকেটে ২৫৯ রান করে। সাকিব অপরাজিত আছেন ৫৫ রানে, মাহমুদুল্লাহ ৩১ রানে। তবে প্রথম দিনটি সাদমানের। অভিষেকেই এই তরুণ হাফ সেঞ্চুরি করে সবার নজর কেড়েছেন। ১৯৯ বলে ৭৬ রানের ইনিংসে তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন, তার টেকনিক নিখূঁত, ডিফেন্স সলিড। হাফ সেঞ্চুরি করার পর আমি ফেসবুকে মজা করে তাকে হাফ অভিনন্দন জানিয়েছিলাম। বলেছিলাম সেঞ্চুরি করলে পুরো অভিনন্দন জানাবো। অভিষেকেই ৭৬ রানের সলিড ইনিংসের জন্য সাদমানকে টুপি খোলা অভিনন্দন। সাদমানদের মধ্যেই তো লুকিয়ে আছে তামিম, সাকিব; বাংলাদেশের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ