প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আসন বণ্টনের ফয়সালা ৮ ডিসেম্বরের পরে

মতিনুজ্জামান মিটু : দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল তথা ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রিক ১৪ দলীয় জোট কিম্বা মহাজোট একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী বণ্টনের বিষয়ে এখনও কোনো চূড়ান্ত ফয়সালায় উপনিত হতে পারেনি। এদিকে দেশের অন্যতম ও প্রধানতম বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি কেন্দ্রিক ২০ দল তথা ঐক্যফ্রন্ট কেন্দ্রিক জোটও ৩০০ আসনে প্রার্থী বণ্টনের চূড়ান্ত ফয়সালায় উপনিত হয়নি। নির্বাচনে মুখোমুখি উভয়পক্ষই আভ্যন্তরিণ আসন বণ্টন বা ভাগাভাগির এই অনিশ্চয়তার মধ্যে নিপতিত থাকায় পর্যবেক্ষক মহল তথা সাধারণ ভোটারদের মধ্যে কমবেশি উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। এর কারণ শান্তিপূর্ণভাবে জোটবদ্ধ সংগঠনগুলোর মধ্যে আসন বণ্টনের ফয়সালা না হলে বিভিন্ন জায়গায় সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির আশংকা থেকে যায়।

সংশ্লিষ্ট একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রিক জোট এবং সকল দল নৌকার প্রার্থী হতে পারছেন না। যেমন কমরেড দিলিপ বড়ুয়ার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের একজনও নৌকা প্রতীক পাচ্ছেন না। শোনা যাচ্ছে তাদের ৪ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন দলীয় প্রতীক চাকা নিয়ে। তবে দল প্রধান দিলিপ বড়ুয়া নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না। ১৪ দলের সঙ্গে যুক্ত আরও দু’টি দল এখনো নৌকা প্রতীক নিশ্চিত করতে পারেনি। এই দু’টি সংগঠনের একটি হলো তৃণমূল বিএনপি। এই সংগঠনের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন শীর্ষ নেতা হতাশার শুরে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে বলেছেন, আমাদের বিষয়টি এখনো স্থগিত রয়েছে। আদৌ কিছু হবে কিম্বা হবেনা তা নিশ্চিত করে বলতে পারছি না।

এদিকে বিএনপি কেন্দ্রিক ২০ দলীয় জোটের অনেক সংগঠনই ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ পাচ্ছেন না। ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ভাসানী ন্যাপ – এর চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গনি ধানের শীষ প্রতীক পেলেও তার দলের অন্য কোন প্রার্থী এই প্রতীক পাচ্ছেন না। শোনা যাচ্ছে তারা নাকি দলীয় ভাবেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে, বাকী যারা নির্বাচন করতে চায় তারা দলের গাভী প্রতীক নিয়েই নির্বাচন করুক। সেভাবইে নাকি এই সংগঠনের ৫ জন প্রার্থী রয়েছে। যার একজন ঢাকা-৮ আসনের সুমী আক্তার। পাশাপাশি ২০ দলীয় জোটের একটি সোনার বাংলা পার্টি তাদের কোনো প্রার্থীকেই ধানের শীষ দেয়া হয়নি। ফলে দলের সভাপতি সিরাজগঞ্জের একটি আসনে ভিন্ন প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এরকমভাবে সাম্প্রতিককালে যুক্ত হওয়া ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের অনেকেই ধানের শীষ প্রতীক পাচ্ছেন না। এরপরও তাদের দীর্ঘ দিনের আন্দোলন সংগ্রাম তথা ক্ষমতার শরীক দল জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে আসন বণ্টনের ফয়সালা এখনো হয়নি। জামায়াত প্রার্থীরা স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন কিম্বা ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী হবেন সে সিদ্ধান্ত এখনও দলটি নিতে পারে বলে সূত্র উল্লেখ করেছে। জানা গেছে, জামায়াত প্রায় ৪০ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছে।

সূত্র আরো বলছে, মহাজোট কেন্দ্রিক জাতীয় পার্টির কতজন প্রার্থীকে নৌকা প্রতীক দেয়া হচ্ছে বা কোন কোন আসনে দেয়া হচ্ছে তারও কোনো ফয়সালা হয়নি। আগামী ২ ডিসেম্বর প্রার্থী বাছাই পর্ব শেষেও এ বণ্টন চুড়ান্ত হবে কিনা তা বলা যাচ্ছে না। হয়তো বা ৮ ডিসেম্বর প্রার্থী প্রত্যাহারের পর পর্যন্ত এই ফয়সালার জন্য অপেক্ষা করতে হতে পারে।

এদিকে মহাজোটের সঙ্গে হাল সময়ে যুক্ত হওয়া অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন বিকল্প ধারা তথা যুক্তফ্রন্ট এর প্রার্থীরা কতজন নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে পারছেন তারও কোনা হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। সম্ভবত এদের বেলাও স্থগিত শব্দটি প্রযোজ্য বলে সূত্র উল্লেখ করছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ