প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাদমান ও সাকিবে স্বস্তির দিন কাটালো বাংলাদেশ

এল আর বাদল : অভিষেক টেস্টে সাদমান ইসলামের ৭৬ রানের একটি নিখুত ইনিংসের পর সাকিব আর মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদের ৬৯ রানের পার্টনারশীপের কল্যাণে টিকে থাকলো বাংলাদেশের বড় সংগ্রহের আশা। শুক্রবার মিরপুর টেস্টের প্রথম দিন ৫ উইকেট হারিয়ে ২৫৯ রান সংগ্রহ করে মাঠ ছাড়ে সাকিববাহিনী।

মাঠে নেমে বাংলাদেশের হয়ে ব্যাটে আলো ছড়িয়ে অভিষেক টেস্ট স্মরণীয় করে রাখলেন ওপেনার সাদমান ইসলাম। শেষ বিকেলে হাসল সাকিব আল হাসানের ব্যাট। দুজনের ব্যাটিং নৈপূণ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে প্রথম দিন শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৫ উইকেটে ২৫৯ রান।

৯৪তম ক্রিকেটার হিসেবে বাংলাদেশের টেস্ট ক্যাপ পরেন সাদমান। শুরু থেকে সাবলীল ছিলেন তিনি ব্যাট হাতে। বল দেখেশুনে খেলে গেছেন এই বাঁহাতি ওপেনার। অবশ্য সৌম্য সরকার তাকে বেশিক্ষণ সঙ্গ দিতে পারেননি। মুমিনুল হকও ছিলেন ব্যর্থ। তাদের হতাশার দিনে সাদমান হাফসেঞ্চুরি করেন। আর শেষ সেশনে সাকিবের স্বতঃস্ফূর্ত ব্যাটিংয়ে দারুণ একটা দিন কেটেছে বাংলাদেশের।

দিনের প্রথম ভাগ ছিল সাদমানের। ৩৬ রানে লাঞ্চে যাওয়া এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান দ্বিতীয় সেশনে করেন হাফসেঞ্চুরি। ১৪৭ বল খেলে ৪টি চারে অর্ধশতক স্পর্শ করেন তিনি। কিন্তু বিশুর স্পিনে ৭৬ রানে বিদায় নিতে হয় তাকে। তার ১৯৯ বলের লম্বা ইনিংস সাজানো ছিল ৬ চারে।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে তৃতীয় বলে সাদমান বাউন্ডারিতে রানের খাতা খোলেন। সৌম্য অন্যপ্রান্তে ঝুঁকি নিয়ে খেলতে থাকেন। শেষ পর্যন্ত রোস্টন চেজের বলে দুর্বল শটে স্লিপে শাই হোপের ক্যাচ হন এই ওপেনার। ভাঙে ৪২ রানের উদ্বোধনী জুটি। ১৯ রানে বিদায় নেন সৌম্য।

মুমিনুল ক্রিজে নেমে গতিময় ব্যাটিং করতে থাকেন। কিন্তু কেমার রোচের শর্ট বলে পুল করতে গিয়ে আ্উট হন ২৯ রান করে। দ্বিতীয় সেশনের শুরুতে ব্যাট করতে নামেন মিঠুন। লম্বা কোনও ইনিংস খেলতে পারেননি। তিনিও ২৯ রানে আউট হন।
মিঠুনকে ফিরিয়ে দেবেন্দ্র বিশু তার পরের ওভারে সাদমানকে থামান। এলবিডাব্লিউর শিকার হন বাঁহাতি ওপেনার।

দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে ৪ হাজার টেস্ট রানের মাইলফলক ছোঁয়ার ম্যাচে লম্বা ইনিংস খেলতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। চা-বিরতির পর ১৪ রান করে শারমন লুইসের কাছে বোল্ড হন তিনি। শেষ বিকেলে সাকিব (৫৫*) ও রিয়াদের (৩১*) ব্যাটিং বড় সংগ্রহের আশা স্বাগতিক দলের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ