প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘রনির ‌ডিগবাজি আমাদের হতাশ করেছে’

রবিন আকরাম : বাংলাদেশের রাজনীতিতে এরকম শেষ মূহুর্তে দলবদলের অনেক নজির আছে। তবে গোলাম মাওলা রনির এই ডিগবাজি আমাদের বেশি হতাশ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন লেখক ও কলামিস্ট প্রভাষ আমিন।

বৃহস্পতিবার অনলাইন নিউজ পোর্টাল সারাবাংলায় তিনি এসব কথা লিখেছেন।

প্রভাষ আমিনের ভাষায়, ১৪ নভেম্বর গণভবন থেকে ২৬ নভেম্বর গুলশান। মাত্র ১২ দিনে আওয়ামী লীগ কতটা খারাপ হলো, বিএনপি কতটা ভালো হলো। কো বদলালো? নাকি বদলে গেলেন গোলাম মাওলা রনি?

তিনি বলেছেন, মনোনয়ন পেলে তিনি আওয়ামী লীগেই থাকতেন। তার মানে আসলে তার বদল হয়েছে রাতারাতি। গোলাম মাওলা রনি আবারও প্রমাণ করলেন, রাজনীতিতে নীতি আদর্শ বলে কিছু নেই; স্বার্থটাই আসল। যতই বড় বড় কথা বলুন আর লিখুন, যতই জাতির বিবেক সাজার চেষ্টা করুন না কেন; বুঝিয়ে দিলেন যাহা এস এ খালেক, তাহাই গোলাম মাওলা রনি।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে এরকম শেষ মূহুর্তে দলবদলের অনেক নজির আছে। তবে গোলাম মাওলা রনির এই ডিগবাজি আমাদের বেশি হতাশ করেছে, কারণ তিনি রাজনীতিতে বুদ্ধিবৃত্তির যে চর্চা শুরু করেছিলেন, তা আমাদের প্রত্যাশা বাড়িয়ে দিয়েছিল। তিনি বুঝিয়ে দিলেন, শিক্ষা নয়, প্রজ্ঞা নয়, আদর্শ নয়, নীতি নয়; তিনি আসলে স্বার্থের গোলাম।

সংসদে, টক শো’তে তিনি দিনের পর দিন বিএনপির সমালোচনা করেছেন। ইউটিউবে তা আছে। তিনি এখন কিভাবে তা অস্বীকার করবেন। বিএনপির রাজনীতির অসারতা প্রমাণ করে তার অসংখ্য লেখা আছে। এখন তিনি কিভাবে বিএনপির হয়ে ভোট চাইবেন?

কেউ কেউ ভাবতে পারেন, গোলাম মাওলা রনি আওয়ামী লীগ ছেড়ে বিএনপিতে যোগ দিয়েছেন বলেই, আমি তার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করছি। কিন্তু ব্যাপারটা মোটেই তেমন নয়। ঐক্যফ্রন্টে জায়গা না পেয়ে বি চৌধুরী-মাহি বি চৌধুরীদের মহাজোটে যোগ দেয়া যেমন অসততা, রনিরটাও তেমনি। নিছক মনোনয়ন না পেয়ে কেউ যদি বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দেন; তার জন্য এই ঘৃনাটুকু বরাদ্দ থাকলো।

গোলাম মাওলা রনি যদি আওয়ামী লীগের আদর্শিক বিচ্যুতিগুলো চিহ্নিত করে, বিএনপির আদর্শিক উন্নয়নের ফিরিস্তি দিয়ে তার দলবদলের যৌক্তিকতা ব্যাখ্যা করতেন; তাহলে আমি বোঝার চেষ্টা করতাম। কিন্তু তিনি নিজেই বলেছেন, স্রেফ মনোনয়ন না পেয়েই তিনি দল বদলেছেন। অথচ এখানে নীতি-আদর্শের কোনো ব্যাপার নেই। অথচ চাইলেই তিনি আওয়ামী লীগ ছাড়ার ১০টি যৌক্তিক কারণ তুলে ধরতে পারতেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ