প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইউরোপকে ইরানের হুশিয়ারি

রাশিদ রিয়াজ : ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখার জন্য ভিয়েনা ও জেনেভায় ইরান ও ইউরোপীয় কর্মকর্তাদের মধ্যে জোর আলোচনা চললেও তেহরা তা যথেষ্ট বলে মনে করছে না। ইউরোপ ইরানের স্বার্থ রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নিলে ইরান পরমাণু সমঝোতার আগের অবস্থায় ফিরে যাওয়ার পাশাপাশি ফের ২০ শতাংশ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের কাজ শুরুর হুমকি দিয়েছে। এটা তেহরানের পক্ষ থেকে একটি সতর্কবার্তা। ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান আলী আকবর সালেহি ব্রাসেলসে ইউরোপীয় কূটনীতিকদের সঙ্গে এক বৈঠকে এ বিষয়টি তুলে ধরেছেন। ওই বৈঠকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোগেরিনিও উপস্থিত ছিলেন। তিনি পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখার ব্যাপারে ভিয়েনায় আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান ইউকিয়া আমানোর সঙ্গেও আলোচনা করেছেন।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোগেরিনি বুধবার জেনেভায় ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফের সঙ্গে সাক্ষাতে আবারো পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখতে ইউরোপের দৃঢ় অবস্থানের কথা উল্লেখ করেন। এদিকে, ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান জন ক্লাউড ইয়ুনকার বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে ইরানের বিরুদ্ধে ফের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেও ইউরোপের উচিত পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া। তিনি আরো বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন বর্তমানে পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখা এবং ইরানের সঙ্গে অর্থনৈতিক সহযোগিতা বজায় রাখার জন্য চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইরানের সঙ্গে অর্থনৈতিক লেনদেন চালু রাখার জন্য একটি বিশেষ অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার চেষ্টা করছে ইউরোপ। এই ব্যবস্থার নাম ‘স্পেশাল ভেহিকেল পারপাস’ বা এসপিভি। তবে, ইউরোপ এখন পর্যন্ত এসপিভি ব্যবস্থা চালু করতে ব্যর্থ হয়েছে। ইরানের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্বাস আরাকচি বলেছেন, পরমাণু সমঝোতার অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়েছে এবং এটি টিকে থাকা না থাকার বিষয়টি নির্ভর করছে ইউরোপের ওপর। ইরানের অর্থনৈতিক স্বার্থ টিকিয়ে রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার সময় ফুরিয়ে আসছে এবং ইরানেরও ধৈর্যের বাধ ভেঙে যাচ্ছে।

এ কারণে ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান আলী আকবর সালেহি ব্রাসেলসে রয়টার্সকে দেয়া সাক্ষাতকারে ইউরোপকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, তারা যদি আমাদের অর্থনৈতিক স্বার্থ রক্ষা না করে তাহলে আমরা ২০ শতাংশ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের কাজ শুরু করব।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গেলেও তাদের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দেয়ার জন্য ইরান এ ব্যাপারে কোনো তড়িঘড়ি করেনি বরং যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়াই পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখার জন্য ইউরোপকে সুযোগ দিয়েছে। বিষয়টি এখন ইউরোপের স্বাধীনতা ও মর্যাদার রক্ষার জন্য বিরাট পরীক্ষা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইউরোপ মনে করে পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখা মধ্যপ্রাচ্যসহ ইউরোপের নিরাপত্তার জন্য অত্যন্ত জরুরি। তারা এটাও জানে মার্কিন হুমকির কাছে মাথা নত করলে ইউরোপই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এ অবস্থায় ইউরোপ কোনদিকে অবস্থান নেবে সেটা আগামীতে বোঝা যাবে। পারসটুডে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ