Skip to main content

ঢাকায় এখন জনপ্রিয় বাহন মোটরসাইকেল

সৌরভ নূর : ঢাকায় মোটর সাইকেলের জনপ্রিয়তার কারণে যুক্তরাষ্ট্রের রাইড শেয়ারিং অ্যাপভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মোটর সাইকেল সেবা হয়ে উঠেছে বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বড় মোটর সাইকেল পরিসেবা। মূলত কম পয়সায় দ্রুত যাতায়াত তার মধ্যে ডিসকাউন্ট সুবিধার কারণে ক্রমেই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এই অ্যাপভিত্তিক মোটর সাইকেল রাইড পরিসেবা। তাছাড়া যাত্রীদের নিরাপত্তায় কয়েকটি সেফটি ফিচার যুক্ত করায় মোটর সাইকেল রাইডে আগ্রহী হচ্ছেন নারীরাও। বাংলাদেশ সড়ক যোগাযোগ কর্তৃপক্ষের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী ঢাকায় মোট নিবন্ধিত বাইকের সংখ্যা ৫ লাখ ৮৫ হাজার ৪৯০টি। এরমধ্যে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে ঢাকায় মোট নিবন্ধিত মোটর সাইকেলের সংখ্যা প্রায় ৭৩ হাজার। সেখানে গাড়ি ও মোটর সাইকেল মিলিয়ে মোট এক লাখ চালক রয়েছে এবং প্রতি সপ্তাহে আড়াই হাজার চালক যুক্ত হচ্ছে। সে তুলনায় অন্যান্য যানবাহনের নিবন্ধন সংখ্যা অনেকটাই কম। ‘অ্যাপভিত্তিক রাইডের মাধ্যমে বাইক ডাকলে বাস ভাড়া থেকে একটু বেশি খরচ পড়লেও গাড়ি থেকে অনেক কম। সবচেয়ে বড় কথা হল, মোটর সাইকেলের মাধ্যমে দ্রুত যানজট ঠেলে গন্তব্যে পৌঁছানো যায়। আর একদম গন্তব্য পর্যন্ত পৌঁছানো যায়। এটাই সবচেয়ে বড় সুবিধা।’ অন্যদিকে এই মোটর সাইকেল যানজটের মধ্যে দ্রুত পরিবহন নিশ্চিত করার পাশাপাশি অনেক তরুণদের জন্য অর্থ আয়েরও উৎস হয়ে উঠেছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত অনেকেই প্রায় প্রতিদিনই অফিসে যাওয়া আসার পথে এই রাইড সেবা দিয়ে থাকেন। এতে একদিকে যেমন তার বাইক রক্ষণাবেক্ষণ খরচ উঠে আসে তেমনি ছুটির দিনে অবসরে কয়েক-ঘণ্টা এই সার্ভিসের মাধ্যমে তার পকেট খরচও এসে য়ায়। তাছাড়া এখন অনেকেই ফ্রিল্যান্সার রাইড সার্ভিস দিচ্ছে। এমন অনেকেই আছে যারা সকাল সন্ধ্যা বাইক রাইড দেন। এখন এটাই তাদের পেশা। উল্লেখ্য ভারতের হায়দ্রাবাদে উবার প্রথম মোটরসাইকেল রাইড শেয়ার সেবা শুরু করলেও বাংলাদেশের মতো এতোটা জনপ্রিয়তা পায়নি।

অন্যান্য সংবাদ