Skip to main content

প্রাণী অধিকার রক্ষায় সোচ্চার সালাহ

স্পোর্টস ডেস্ক: রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো বেওয়ারিশ কুকুর-বিড়াল বিদেশে রপ্তানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে মিসর। দেশের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করেছেন লিভারপুলের মিসরীয় তারকা মো সালাহমিসরে মো সালাহর জনপ্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন চলে না। লিভারপুলের হয়ে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের গত মৌসুমে দুর্দান্ত খেলে মিসরের ফুটবলপ্রেমীদের হৃদয় কেড়েছেন এই ফরোয়ার্ড। এবার খেলার বাইরের একটি কারণে আলোচনায় উঠে এলেন সালাহ। সেটি মিসরের রাস্তায় বিচরণ করা কুকুর-বিড়াল বিদেশে রপ্তানির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ টেবিলের দুইয়ে রয়েছে লিভারপুল। শীর্ষস্থানীয় ম্যানচেস্টার সিটির সঙ্গে মাত্র ২ পয়েন্ট ব্যবধানে পিছিয়ে অলরেডরা। তবে সালাহ গত মৌসুমে পারফরম্যান্স এবার সেভাবে টানতে পারছেন না। ১৩ লিগ ম্যাচে করেছেন ৭ গোল। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে সংখ্যাটা ১৮ ম্যাচে ৯ গোল। চ্যাম্পিয়নস লিগে আজ রাতে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ রয়েছে লিভারপুলের। পিএসজির মুখোমুখি হবে দলটি। এ ম্যাচে বড় ভূমিকা রাখার চ্যালেঞ্জ নিতে হবে সালাহকে। তবে শুধু মাঠের ভেতরে নয়, মাঠের বাইরেও ইদানীং ভূমিকা রাখতে শুরু করেছেন ২৬ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড। এবার যেমন পশুদের জীবন বাঁচাতে মিসরের সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেন সালাহ। গত সপ্তাহে মিসরের কৃষি মন্ত্রণালয় রাস্তার প্রায় চার হাজার কুকুর-বিড়াল বিদেশে রপ্তানির সিদ্ধান্ত অনুমোদন করে। মিসরের রাস্তায় কুকুর-বিড়ালের সংখ্যা নেহাতই কম নয়। সম্ভবত তা নিয়ন্ত্রণে আনতেই এই সিদ্ধান্ত। দেশটির সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ২ হাজার ৪০০ বিড়াল আর ১ হাজার ৬০০ কুকুরের স্বাস্থ্য পরীক্ষা আর টিকা দিয়ে পাঠানো হবে বিদেশে। তবে কোন কোন দেশে আর কী উদ্দেশে পাঠানো হবে, তা নিয়ে কিছুই বলেনি মিসরীয় সরকার। প্রাণী অধিকার সংরক্ষণ সংস্থাগুলো শুরু থেকেই মিসরের সরকারের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে। মঙ্গলবার এই প্রতিবাদে যোগ দেন সালাহ। ‘নো টু অ্যানিমেল রাইটস ভায়োলেশন’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে তাঁর টুইট, ‘বিড়াল ও কুকুর কোথাও রপ্তানি হবে না। এটা হবে না এবং হতে পারে না।’ নিজের পোষা দুটি সিয়ামিজ বিড়ালসহ ছবি তুলে এই টুইট করেন মিসরীয় তারকা ফরোয়ার্ড। সালাহর ধারণা, বিদেশে এসব কুকুর-বিড়াল খাদ্য হিসেবে ব্যবহার হবে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সালাহর এই টুইটের পক্ষে প্রচারণাও শুরু করেছেন তার ভক্তরা। অনেকে তার প্রশংসাও করছেন। তবে সালাহকে অনেকে মনে করিয়ে দিয়েছেন, প্রাণী অধিকারের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু আছে মিসরে। সালাহর সেই টুইটে এক ভক্তের জবাব, ‘আগে মানবাধিকার রক্ষা করি, তারপর প্রাণী অধিকারে মনোযোগী হওয়া যাবে। প্রথমআলো