Skip to main content

বলেছেন মনোনয়নে ‘এরর অব জাজমেন্টের’ কথা

সাব্বির আহমেদ : দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তারেক রহমান বলেছেন, নিজেদের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় সকল ভয়ভীতি উপেক্ষা করে দলে দলে ঘর থেকে বেরিয়ে আসুন। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় বেলা ১১টায় লন্ডন থেকে এই বক্তব্য ফেসবুক, ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত হয়েছে। সূত্র : বিবিসি বাংলা তারেক রহমান নেতাকর্মীদের বলেন, আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে যারা বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছেন কিংবা যারা মনোনয়ন পাননি, সবাই খালেদা জিয়ার কথা মনে রেখে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ভুলে অন্তত আগামী ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত নিজেদের ঐক্যকে হিমালয়ের মতো সুদৃঢ় এবং ইস্পাতের মতো কঠিন রূপে গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, অন্তত একবারের জন্য, বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে শুধুমাত্র আগামী কয়টি দিনের জন্য নিজেদের চাওয়া পাওয়া ভুলে দেশের জন্য-গণতন্ত্রের জন্য খালেদা জিয়ার মুক্তিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে। তারেক রহমান আসন্ন নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থীবৃন্দের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের ঐক্য এবং দৃঢ় প্রত্যয়ই পারে বন্দি হাজার হাজার ভাইবোনকে মুক্ত করতে, আপনাদের ঐক্য এবং দৃঢ় প্রত্যয়ই পারে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোট ডাকাতি রোধ করতে। তিনি বলেন, সম্ভাব্য সকল পরিস্থিতি বিবেচনা করে দল একজনকেই মনোনয়ন দিতে পারবে। এই মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় কোনো কোনো ক্ষেত্রে হয়তো আমাদের ‘এরর অফ জাজমেন্ট’ থাকতে পারে। তারপরও আমি আপনাদের ভাই হিসেবে, আপনাদের সন্তানতুল্য হিসেবে দেশের প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় দলের সর্বস্তরের প্রতিটি নেতা কর্মী সমর্থকের কাছে আমার একান্ত অনুরোধ কারাবন্দি মায়ের মুক্তির কথা বিবেচনা করে দলের সিদ্ধান্তকে আপনারা সর্বশক্তি দিয়ে বাস্তবায়ন করবেন। দলের ওপর, দেশনেত্রীর ওপর আস্থা রাখুন। আমি কথা দিচ্ছি, দেশে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত হলে অবশ্যই রাজনৈতিকভাবে আপনাদের প্রত্যেকের ত্যাগ তিতিক্ষা যোগ্যতার সর্ব্বোচ্চ মূল্যায়ন করা হবে। দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ক্ষমতাসীন শক্তি আমাদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি এবং ঐক্য নষ্টের নানারকম কৌশল অবলম্বন করছে এবং করবে। এ কারণেই আমাদেরকে সাহস ও সতর্কতার সঙ্গে এগিয়ে যেতে হবে। এই সময় সোশ্যাল মিডিয়া কিংবা বিভিন্ন গণমাধ্যমে আমাদের সম্পর্কে, আমাদের প্রার্থী সম্পর্কে এবং আমাদের বিভিন্ন নেতাকর্মী সম্পর্কে বিভিন্নপ্রকার মিথ্যা, কাল্পনিক ও বানোয়াটি খবর কিংবা ছবি প্রকাশের মাধ্যমে জনগণ ও আপনাদেরকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করা হবে। তিনি সরকারী প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অভয় দিয়ে বলেন, ক্ষমতাসীন শক্তি মিথ্যে কথা ছড়িয়ে দিয়ে প্রশাসনকেও বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করবে। আমি আগেও বলেছি, আবারো বলছি,আমাদের দল সরকার গঠন করলে অন্যায়ভাবে অথবা রাজনৈতিক কারণে কোনো সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীর চাকুরী যাবে না। প্রশাসনে যাদেরকে বর্তমান সরকার অপকর্ম করতে বাধ্য করেছে কিংবা এখনো করছে তাদের সামনে একটি সুযোগ এসেছে। এ দেশ আপনাদেরই, এ দেশের জনগণ আপনাদেরই পরিবারেরই অংশ।তাই জনগণের ইচ্ছের বিরুদ্ধে দাঁড়াবেন না।গণতন্ত্রের বিপক্ষে দাঁড়াবেন না।জন প্রশাসনের বিধিবদ্ধ আইনকে উপেক্ষা করবেন না। জনগণের বুকে গুলি চালাবেন না। তিনি বলেন, বর্তমান ক্ষমতাসীনরা সারাদেশে ভয়ের সংস্কৃতি চালু করেছে।বিএনপির পক্ষ থেকে আমি দেশবাসীকে কথা দিচ্ছি বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সরকার গঠন করলে দেশ থেকে এই ভয়ের সংস্কৃতি অবশ্যই দূর করা হবে। মানুষ নির্ভয়ে কথা বলবে, নিরাপদে স্বাধীন ও দেশের সম্মানিত নাগরিক হিসেবে দেশের ভেতর বুক ফুলিয়ে চলাফেরা করবে। আগামী নির্বাচনটি গণতন্ত্র প্রিয় মানুষের জন্য, বাক ও ব্যক্তি স্বাধীনতায় বিশ্বাসী মানুষের জন্য, একটি সুযোগ এবং অধিকারও বটে। যে কোনো মূল্যে আপনার এই অধিকার প্রয়োগের প্রস্তুতি নিন।

অন্যান্য সংবাদ