প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সীরাত
অনুমতি না মিললে কারো ঘরে প্রবেশ করতে নিষেধ করেছেন রাসূল সা.

আমিন মুনশি : অনুমতি না নিয়ে কারো ঘরে প্রবেশ করা ঠিক নয়। পরিচিত-অপরিচিত যে কারো ঘরে প্রবেশ করতে হলে তার অনুমতি নিতে হয়। আর ভদ্রতার দাবিও এটাই। হযরত যয়নব সাকাফী রা. (আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-এর স্ত্রী) বলেন, আবদুল্লাহ যখন কোনো প্রয়োজন সেরে দরজায় এসে পৌঁছতেন তখন গলা খাঁকারি দিতেন এবং থুথু ফেলতেন। যাতে অকস্মাৎ আমাদেরকে এমন কোনো অবস্থায় দেখে না ফেলেন যা তার খারাপ লাগবে। (তাফসীরে তাবারী ১৭/২৪৫; তাফসীরে ইবনে কাসীর ৬/৪১-৪২)

যখন কারো ঘরে প্রবেশে তার অনুমতি না মিলবে তখন সেখান থেকে ফিরে আসতে হবে। জোর করে ঢুকে পড়লে চলবেনা। হযরত আবু মূসা আশআরী রা. থেকে বর্ণিত, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, তিনবার অনুমতি চাওয়া যাবে। মঞ্জুর হলে (তো ভালো)। অন্যথায় ফিরে যাবে। (সহীহ মুসলিম, হাদীস ২১৫৪)

অনেকের ধারণা, মা-বোনের ঘরে ঢুকতে হলে বুঝি অনুমতির প্রয়োজন নেই। অথচ হাদিস শরিফে এসেছে, হযরত আলকামা থেকে বর্ণিত, এক ব্যক্তি আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.)-কে জিজ্ঞাসা করল, আমি কি মায়ের কাছে গেলে অনুমতি নিব? তিনি বললেন, সব অবস্থায় তোমার তাকে দেখা পছন্দ হবে না। (আলআদাবুল মুফরাদ, বর্ণনা ১০৫৯)

অন্য হাদিসে আতা ইবনে আবী রাবাহ থেকে বর্ণিত, আমি ইবনে আব্বাস (রা.)-কে জিজ্ঞাসা করলাম, বোনের কাছে গেলে কি আমি অনুমতি নিব? তিনি বললেন, হ্যাঁ। বর্ণনাকারী বলেন, আমি আবার জিজ্ঞাসা করলাম, আমার প্রতিপালনে দুটি বোন আছে, আমি তাদের দেখাশোনা করি এবং তাদের জন্য খরচ করি, তাদের কাছে গেলেও কি আমার অনুমতি নিতে হবে? তিনি বললেন, হ্যাঁ। তোমার কি তাদেরকে বিবস্ত্র দেখা পছন্দ হবে? এরপর তিনি সূরা নূরের ৫৮ ও ৫৯ নং আয়াত পাঠ করে বলেন, সকলের জন্য অনুমতি নেওয়া জরুরি। -প্রাগুক্ত, বর্ণনা ১০৬৩

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ