প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দোলোয়ারের দাফন সম্পন্ন
খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি এলাকাবাসীর

মাহফুজ নান্টু, কুমিল্লা : কুমিল্লা সদর দক্ষিন উপজেলার বল্লবপুর বড় বাড়ীর প্রয়াত মহসিন মিয়ার ঘরে-বাইরে শতাধিক মানুষ। তখন বেলা সাড়ে বারটা। বাড়ির ভেতরে থেমে থেমে গুমরে কেঁদে উঠছেন স্বজনরা। উঠোনের এক কোনে চলছে লাশের গোছলসহ জানাযার নামাজ পড়ার আনুষ্ঠানিকতার কাজ। বাড়ীর ভেতরে বাইরে আত্মীয় স্বজন পাড়া প্রতিবেশীসহ মিলে শত-সহস্রাধিক মানুষের আনোগোনা। কারো মুখে শোরগোল নেই। সবার চোখে প্রিয় মানুষ হারানোর পানি ছলচল করছিলো।

সান্তনা খুঁজতে একজন অন্যজনকে জড়িয়ে ধরে কাদঁছিলো। বেলা দেড়টার কিছু আগে সাদা কাফনের মুড়িয়ে পালংকে লাশ উঠানো হলো তখন এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যর অবতরণা ঘটে। গত সোমবার রাত ন’টায় বাড়ীর পাশে অজ্ঞাত দূর্বৃত্তরা গুলিতে খুন হয় কুমিল্লা (দ:) জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনে। গতকাল মঙ্গলবার বাদ জোহর সামবকসী প্রাথমিক বিদ্যালয় ঈদগা মাঠ সংলগ্ন মাঠে জানাযার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

অকালে স্বামী হারিয়ে শোকে বিহব্বল স্ত্রী জিলহজ আক্তার। আট মাস বয়সী ছোট ছেলে আবু রিহানকে বুকে চেপে ধরে অঝোরে কাঁদছিলেন জিলহজ আক্তার, মায়ের পাশে দাড়িয়ে কাঁদছিলো দেলোয়ারের বড় ছেলে ৪ বছর বয়সী আবু রাইয়ান। দীর্ঘ বছর ধরে চলা প্রতিবেশী ও সহকর্মীর চির দিনের জন্য বিদেয় দেয়ার সন্ধিক্ষনের এমন মুর্হূতে এক কান্নার রোল উঠে। স্তব্দ হয়ে উঠে পরেবেশ।

বেলা দেড়টার কিছু পরে সামবকসী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ সংলগ্ন ঈদগা মাঠে জানাযার নামাজ শেষ হয়। জানাযার নামাজে অংশগ্রহন করেন কুমিল্লা সদর আসনের সাংসদ ও মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা হাজী আ.ক.ম বাহা উদ্দিন বাহার। এ সময় তিনি বলেন, যারা দেলোয়ারকে খুন করেছে তারা আগে থেকেই পরিকল্পনা করে রেখেছিলো। হয়তো খুনিরা আজকের জানাজার নামাজেই উপস্থিত আছে।

দেলোয়ারের খুনি যেই হোক না কেন তাদেও খুঁজে বের করবোই। আমি বিশ্বাস করি আমাদের কুমিল্লা জেলা পুলিশে কিছু অভিজ্ঞ পুলিশ কর্মকর্তা রয়েছেন যারা সবার সঠিক সহযোগিতা পেলে দেলোয়ারের খুনিদের খুব দ্রুত আটক করতে পারবেন। আপনারা পুলিশ সঠিক তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করবেন।

এ সময় হাজী বাহার আরো বলেন, দেলোয়ার আমার যেমন কর্মী ছিলো পরিকল্পনামন্ত্রী লোটাস কামালেরও কর্মী ছিলো। আজ লোটাস কামাল আমাকে ফোন দিয়ে বলেন, বাহার ভাই আমি রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যস্ত থাকায় আসতে পারিনি। আমার পক্ষ থেকে সবার কাছ থেকে দেলোয়ারের জন্য ক্ষমা চেয়ে নিবেন। আমিও বললাম কামাল ভাই আমি জানাযায় যাবো এবং আপনার কথা বলবো। এ সময় দেলোয়ারের খুনিদের আটক করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, সদর দক্ষিন উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ আবদুল হাই বাবলু,কাউন্সিলর আবদু সাত্তার। পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন খুন হওয়া দেলোয়ারের বড় ভাই জাকির হোসাইন।

জানাযার নামাজে মহানগর ও কুমিল্লা (দ:) জেলার আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীসহ সহস্রাধিক সাধারণ মানুষজন অংশগ্রহণ করেন।
এদিকে স্বামী হত্যার বিচার চেয়ে স্ত্রী জিলহজ আক্তার বলেন,আমার স্বামী কারো সাথে অন্যায় করে নি। যারা আমার স্বামীকে হত্যা করেছে,আমাকে বিধবা করেছে, আমার অবুঝ দুটি ছেলেকে পিতৃহীন করেছে আমি তাদের বিচার চাই। গত সোমবার রাত ন’টায় কুমিল্লা (দ:) জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনকে মোটরবাইকযোগে তিনজন দূর্বৃত্ত বাড়ীর পাশে গুলি করে খুন করে।

এদিকে খুনিদের আটকের বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা সদর দক্ষিন থানার ওসি মামুনুর রশিদ জানান, পুলিশ খুনিদের আটকে অভিযান পরিচালনা শুরু করেছে। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করতে পারি নি। আশা করি অচিরেই খুনিদের আটক করতে সক্ষম হবো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ