Skip to main content

পায়ে লিখে জীবন জয়ের স্বপ্ন প্রতিবন্ধী রাফিয়ার

এম. আমান উল্লাহ, কক্সবাজার : পায়ে লিখে প্রতিকুল অবস্থায় জীবন জয়ের স্বপ্ন দেখছে সদ্য পিএসসি পরীক্ষা সম্পন্নকারী প্রতিবন্ধী রাফিয়া আলম জেবা। ঈদগাঁও ভোমরিয়া ঘোনা এলাকার ব্যাবসায়ী শাহ আলম ও গৃহিনী ছফুরা আক্তারের কন্যা। সে ঈদগাঁও ভোমরিয়াঘোনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী হিসেবে ঈদগাহ আদর্শ শিক্ষা নিকেতন কেজি স্কুল কেন্দ্রে অন্যদের সাথে বসে পায়ে লিখে পিএসসি পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে। জন্ম হয়েছিল ডানহাত ছাড়া এবং বামহাতের আঙ্গুলছাড়া ২০০৭ সালে। সে আজ ১১ বছরের অদম্য শিশু। যাকে শত প্রতিকুলতা স্বত্তেও জীবন জয়ের স্বপ্নে কেউ দমিয়ে রাখতে পারেনি। যার জীবন অন্য দশজন প্রতিবন্ধীর মত বাবা-মায়ের ঘাড়ে বসে থাকা ছাড়া অন্য কোন চলাফেরার উপায় ছিল না। আজ সে রাফিয়া স্বপ্ন দেখছে অন্যের বোঝা না হয়ে লেখাপড়া শেষ করে নিজের পায়ে নিজে দাঁড়াতে। সেই স্বপ্নে বিভোর অদম্য পিএসসি পরীক্ষার্থী রাফিয়া পায়ে লিখে সুস্থ, সবল অন্যান্য শিশুদের মত সফলভাবে পরীক্ষা শেষ করেছে। ২৬ নভেম্বর শেষ পরীক্ষার দিন তার সাথে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রতিবেদকের সাথে কথা হলে তার দাবি সবকটি পরীক্ষা ভাল হয়েছে। এমনকি জিপিএ ৫ অর্জন করতে পারবে বলেও সে আশাবাদী। তার কথায় প্রতিয়মান প্রতিবন্ধী হলেও জীবন নিয়ে সে খুবই আশাবাদী। পরীক্ষা কেন্দ্রের হল পরিদর্শক শিক্ষক রুপন দে জানান, রাফিয়া পায়ে লিখলেও তার ভিতর কোন জড়তা ছিলনা অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে একই রুমে বসে সে সবকটি পরীক্ষা দিয়েছে। তার লেখাও সুন্দর এবং সুস্পষ্ট। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সব্বির আহমদ জানান, রাফিয়া ভর্তির পরথেকে পায়ে লিখে তার লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে। প্রত্যেক শ্রেণীতে সে প্রতিটি পরীক্ষায় ভাল ফলাফল অর্জন করেছে। প্রতিকুলতা তার অদম্য পথ চলাকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। আসুন সাহসী অদম্য আগ্রহী রাফিয়া আলম জেবার জন্যে সকলে দোয়া করি। সাহস যোগায় তার জীবন জয়ের স্বপ্ন পুরণে।