প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইয়াসির শাহের দুরন্ত রেকর্ড

স্পোর্টস ডেস্ক : সোমবার আবুধাবিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৪১ রানের বিনিময়ে একাই ৮ উইকেট তুলে নেন পাকিস্তানের স্পিনার ইয়াসির শাহ। এরপর ফলোঅনে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামে নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় ইনিংসেও দুটি উইকেট তুলে নিয়ে ইয়াসির এক দিনে ১০ উইকেটের মালিক বনে যান। এর আগে টেস্টে একদিনেই ১০ উইকেট নিয়ে রেকর্ড বুকে নিজের নাম লিখেছিলেন ভারতের স্পিনার অনীল কুম্বলে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে নিউজিল্যান্ড ৫০ রানের ওপেনিং জুটি গড়লেও প্রথম ইনিংসে গুটিয়ে যায় মাত্র ৯০ রান তুলে। এর আগে ৫ উইকেটে ৪১৮ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে পাকিস্তান। প্রথম ম্যাচটি ৪ রানে জিতেছিল নিউজিল্যান্ড।

২০০১ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে অকল্যান্ডে নিউজিল্যান্ড বিনা উইকেটে ৯১ রান থেকে ১৩১ রানে অলআউট হয়েছিল। সেবার স্পিনার সাকলাইন মোস্তাক আর পেসার মোহাম্মদ সামি গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন কিউই ইনিংস। আজ গুঁড়িয়ে দিয়েছেন আরেক স্পিনার ইয়াসির শাহ। প্রথম ইনিংসের আট আর দ্বিতীয় ইনিংসের দুই উইকেট সহ ইয়াসির নিউজিল্যান্ডের সব ব্যাটসম্যানকেই সাজঘরের পথ দেখিয়েছেন, শুধু ওয়াটলিং এবং কলিন ডি গ্রান্ডহোমকে ছাড়া। দ্বিতীয় ইনিংসে ওপেনার জীত রাভাল এবং দলপতি কেন উইলিয়ামসনকে স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলেন ইয়াসির। তৃতীয় দিন শেষে কিউইরা দুই উইকেট হারিয়ে তুলেছে ১৩১ রান।

সোমবার আবুধাবিতে ৪১ রানে ৮ উইকেট নেওয়ার মধ্য দিয়ে ইয়াসির সেরা বোলিং ফিগার স্পর্শ করেছেন। দুই বছর আগে এই ভেন্যুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেবেন্দ্র বিশু ৪৯ রানে নিয়েছিলেন ৮ উইকেট। যেকোনো পাকিস্তানি বোলার হিসেবে ইয়াসির তৃতীয় সেরা বোলিং ফিগার স্পর্শ করেছেন। তার আগে আবদুল কাদির ৫৬ রানে নিয়েছিলেন ৯ উইকেট এবং সরফরাজ নওয়াজ ৮৬ রানে নিয়েছিলেন ৯ উইকেট।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৯৬১ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার গোফি লরেন্স ৫৩ রানের বিনিময়ে জোহানেসবার্গে নিয়েছিলেন ৮ উইকেট। ইয়াসির তার প্রথম উইকেট নেওয়ার পর ২৭ বলের মধ্যে বাকি সাতটি উইকেট তুলে নেন। ৭৫ ডেলিভারিতে আট উইকেট পান ইয়াসির। যা বেস্ট স্ট্রাইকরেটের দিক থেকে ষষ্ঠ স্থানে। ইংল্যান্ডের পেসার স্টুয়ার্ট ব্রড ২০১৫ সালের অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫৭ বলে নিয়েছিলেন আট উইকেট।

নিউজিল্যান্ডের ছয় ব্যাটসম্যানই ০ রানে ফিরেছেন। টেস্টের আরও চারটি ইনিংসে ছয় ব্যাটসম্যান ডাক মেরেছিলেন। সবশেষ ২০১৪ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওল্ড ট্রাফোর্ডে ভারতীয় ছয় ব্যাটসম্যান ডাক মেরেছিলেন। আরব আমিরাতে প্রথম ইনিংসে ৯০ রানেই গুটিয়ে যাওয়া নিউজিল্যান্ডের সর্বনিম্ন রানের স্কোর। এর আগে ২০০২ সালে পাকিস্তান ৫৩ এবং ৫৯ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল। ইংল্যান্ড গুটিয়ে গিয়েছিল ৭২ রানে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ