প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আ. লীগের আবু সাইয়িদ গণফোরামে ভোটে লড়বেন ধানের শীষে

কালের কন্ঠ : ভোটের লড়াইয়ে নামতে আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা, সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাইয়িদ যোগ দিয়েছেন কামাল হোসেন নেতৃত্বাধীন গণফোরামে। গতকাল সোমবার দুপুরে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তিনি গণফোরাম ও ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেন। গণমাধ্যমকে মন্টু জানিয়েছেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে পাবনা-১ (সাঁথিয়া-বেড়া) আসন থেকে আবু সাইয়িদ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে পারেন।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লাভের চেষ্টায় ছিলেন আবু সাইয়িদ। কিন্তু গত রবিবার আওয়ামী লীগ ওই আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকুকে মনোনয়ন দেওয়ায় আবু সাইয়িদের সম্ভাবনা বিনষ্ট হয়ে যায়। এ অবস্থায় আসন্ন নির্বাচনে বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচনে লড়তে দেখা যেতে পারে আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা আবু সাইয়িদকে। তাঁর নতুন দল গণফোরামসহ জোটের শরিকরা এবার ওই প্রতীকেই নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আবু সাইয়িদের গণফোরামে যোগদান নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে সাংবাদিকরা প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এসব নিয়ে আমাদের (আওয়ামী লীগের) মাথাব্যথা নেই। এ ধরনের লোক চলে যাওয়ার পর আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা কমেনি, বরং বেড়েছে। ড. কামাল হোসেন, মাহমুদুর রহমান মান্না, কাদের সিদ্দিকীর মতো নেতা যেখানে আমাদের দল ছেড়ে চলে গেছেন, সেখানে আবু সাইয়িদ তো কিছুই না। গতকাল দলের ধানমণ্ডির কার্যালয়ে আয়োজিত পূর্বনির্ধারিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ প্রতিক্রিয়া জানান।

১৯৭০ সালে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সর্বকনিষ্ঠ সদস্য নির্বাচিত হয়ে বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য হয়েছিলেন অধ্যাপক সাইয়িদ।

১৯৯৬ সালের নির্বাচনে পাবনা-১ আসনে জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষনেতা মতিউর রহমান নিজামীকে হারিয়ে সংসদ সদস্য হয়েছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক আবু সাইয়িদ। ১৯৯৬ সাল থেকে পাঁচ বছর আওয়ামী লীগ সরকারের তথ্য প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। ওয়ান-ইলেভেনের পর দলে সংস্কারপন্থী হিসেবে পরিচিতি পাওয়ায় নেতৃত্ব থেকে ছিটকে পড়েন আওয়ামী লীগের তখনকার তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক। ২০০৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়নও পাননি। ২০১৪ সালে দশম সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন। কিন্তু নৌকার প্রার্থী শামসুল হক টুকুর কাছে হেরে যান তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ