Skip to main content

ইভিএম ব্যবহারের জন্য তিনহাজার আটশ কোটি টাকা ব্যয় অবিশ্বাস্য : গোলাম মোর্তোজা

ফাহিম আহমাদ বিজয় : সাপ্তাহিক সম্পাদক গোলাম মোর্তোজা বলেছেন, নির্বাচন কমিশন প্রথমে বলেছিলো, এবারের নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে না। তারপরে দেখলাম, কোথা থেকে যেন এটি নাজিল হলো। তারপরে তারা বললো, একশত আসনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। এরপরে বলা হলো, অল্প কিছু আসনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে এবং সবশেষে দেখলাম যে, ছয়টি আসনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি আরও বলেন, এই ছয়টি আসনে ইভিএম ব্যবহার করার জন্য তিনহাজার আটশত কোটি টাকা ব্যয় করা হলো। এটি অবিশ্বাস্য এবং রহস্যজনক ব্যাপার। এবার ছয়টি আসনে যদি ইভিএম ব্যবহার করা হয়, তাহলে একশত আসনে ব্যবহার করার মতো ইভিএম মেশিন কেন কেনা হলো! বিষয়টি এমন নয় যে, এসমস্ত মেশিন গোডাউনে রেখে পরে আবার ব্যবহার করা যাবে। এসমস্ত মেশিন প্রতিনিয়ত হয়, প্রযুক্তি প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল। এক প্রশ্নের জবাবে গোলাম মোর্তোজা বলেন, আগামী পাঁচ বছর পরে যখন জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে, তখন এ মেশিনটির আপার ভার্সন থাকবে। এখন প্রশ্ন হলো, আমরা সেই আপার ভার্সনের আগে কেন পুরোনো ভার্সন মওজুদ করে রাখলাম? এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার। আমরা শুরু থেকেই যেটি বলেছিলাম, ইভিএম ব্যবহার করার যে কারিগরি সক্ষমতা থাকতে হয়, যে প্রযুক্তিগত সক্ষমতা থাকতে হয়, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সেই কারিগরি এবং প্রযুক্তিগত সক্ষমতা নেই। তিনি বলেন, যদিও সবশেষে, নির্বাচন কমিশন সেনাবাহিনীর সহায়তা নিয়ে ছয়টি আসনে ইভিএম ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এটি তারা সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারবে কিনা সন্দেহ রয়েছে এবং এ নিয়ে বিতর্ক তৈরি হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। ইভিএম থেকে কোনো সুফল পাওয়া যাবে বলে মনে হচ্ছে না। এটি অহেতুক একটি প্রকল্প। এর কোনো প্রয়োজন ছিলো না।

অন্যান্য সংবাদ