প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আলাদা প্রতীক নিলে ঐক্যের সিম্বল থাকে না, তাই ধানের শীষ নিয়েছি : মান্না

মো. মারুফুল আলম : নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, জোট যখন করেছি, জোটের একটি সিম্বল থাকাও দরকার। আলাদা আলাদা প্রতীক নিলে ঐক্যের সিম্বলটা থাকে না। এখন কোন প্রতীকটা নেবো? যেটা সবচেয়ে বেশি পপুলার সেটাই নেবো। সে হিসেবে ধানের শীষ নিয়েছি। রোববার বিবিসি বাংলাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রথম থেকে বলে আসছি, নির্বাচনকে একটা লড়াই হিসেবে নিয়েছি। যে লড়াইয়ে আমরা বর্তমান স্বৈরাচারী সরকারকে ভোটের মাধ্যমে পরাস্ত করবো। অতএব, আমাদের প্রাথমিক কনসিডারেশনটা হচ্ছে, ভোটে বিজয়ের সম্ভাবনা যার বেশি তাকেই মনোনয়ন দেবো, সে যে দলেরই হোক।

তিনি আরো বলেন, ভোটের লড়াইয়ে টিকে থাকার ব্যাপার আছে। সরকারের নির্যাতনের মাত্রা কমছে না, বরং বাড়ছে। এখনো পর্যন্ত গায়েবি মামলা আছে, গ্রেফতারও চলছে। পত্রিকার খবর অনুযায়ী, কেউ কেউ অভিযোগ করেছেন, প্রশাসন গোপনে বৈঠক করছে কীভাবে নির্বাচনে আমাদের সক্রিয় অংশগ্রহণ থেকে বিরত রাখা যায়। সেজন্য সক্ষমতার একটি বিষয় আছে। তাই সাহস ও সক্ষমতার সঙ্গে যে লড়াইটা করতে পারবেন, সেটি বিবেচনায় রেখে আসন বণ্টনের কাজ এগিয়ে চলছে। তারপরও একটি সমঝোতাতো হবেই। তবে আসন বন্টনে কোনো জটিলতা নেই।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কতোগুলো আসন পেতে পারে জানতে চাইলে মান্না বলেন, এ রকম সংখ্যা বলতে পারবো না। সংখ্যার ভিত্তিতে আলোচনা হয়নি এবং এই ভিত্তিতে হবেও না। আমরা বিভিন্ন দল থেকে বলেছি যে, আমাদের এতোগুলো প্রার্থী আছেন, এই প্রার্থী এই বিবেচনায় যোগ্য। ধরুন, কেউ দশটা দিচ্ছেন বা কেউ একশটি দিচ্ছেন। এগুলো নিয়ে পর্যালোচনা করেই সিদ্ধান্তটা হবে। ২০ দলের ব্যাপারটা ২০ দল দেখবে।

‘সরকার ও নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে আপনাদের নানারকম অভিযোগ, একইসাথে নির্বাচনী কার্যক্রমও চলমান রয়েছে’ এ মন্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, লড়াই করার জন্য শক্তি আমাদের জনগণ। অন্যকোনো শক্তি তো আমাদের নেই। প্রশাসন আমাদের সঙ্গে নেই। তাই জনগণের কাছে পৌঁছানোর ক্ষেত্রেই বাধাগ্রস্ত হচ্ছি প্রতিনিয়ত।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ