Skip to main content

পর্যবেক্ষকদের ওপর বিধি-নিষেধ আরোপ অযৌক্তিক :  আবু সাঈদ খান

লিয়ন মীর : ‘মূর্তির মতো দাঁড়িয়ে থেকে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করতে হবে’ বলে নির্বাচন কমিশন সচিব যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা বাতিল করে, নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নতুন নিদের্শনা দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন সিনিয়র সাংবাদিক এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক আবু সাঈদ খান। এ প্রতিবেদকের সংঙ্গে আলাপকালে তিনি আরও বলেন, নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। নির্বাচনকালীন সময়ে, নির্বাচন কমিশন নির্বাচনকালীন সরকার থেকে বেশি শক্তিশালী অবস্থানে থাকে। সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশন সাংবিধানিকভাবে যেকোনো পদক্ষেপ নিতে পারে। এককথায় ইসি সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী। ইসি চাইলে, যেকোনো কর্মকর্তাকে বদলি করতে পারে, প্রশাসনে রদবদল করতে পারে, একজনের দায়িত্ব বাতিল করে অন্য একজনকে দিতে পারে। তাই নির্বাচন কমিশন সচিবের বক্তব্য বাতিল করে, ইসির নতুন নিদের্শনা দেওয়া উচিত। এক প্রশ্নের জবাবে আবু সাঈম খান বলেন, নির্বাচন পর্যবেক্ষকেরা সচল মানুষ। এই সচল মানুষদেরকে যদি মূর্তি বানিয়ে দেওয়া হয়, তাহলে তো আর মূর্তি দিয়ে পর্যবেক্ষণ সম্ভব হবে না। পর্যবেক্ষকদের চোখ-কান খোলা রাখতে হবে। প্রয়োজন হলে তাদের হাতে ক্যামেরা থাকতে হবে। পর্যবেক্ষকেরা সুশৃঙ্খলভাবে পর্যবেক্ষণ করে সমস্ত চিত্র তাদের সংগ্রহে রাখবে। সেটা তাদের মস্তিষ্কে, ক্যামেরায় এবং লেখনিতে ধারণ করবে। এক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করা কোনো বিধিতে পড়ে না। এটা দেশের প্রচলিত আইন এবং গণতান্ত্রিক অধিকারের সঙ্গে সংঙ্গতিপূর্ণ নয়। তিনি বলেন, মূর্তির মতো দেখা মানে হচ্ছে- এখানে যা কিছু হবে, তার কিছুই দেখতে পারবেন না, কিছুই বলতে পারবেন না। আবার দেখলেও বলতে পারবেন না। কেননা, মূর্তির তো মুখের ভাষা নেই। পর্যবেক্ষকদের ওপর বিধি-নিষেধ আরোপ বা নিদের্শনা একেবারেই অযোক্তিক এবং হাস্যকর।

অন্যান্য সংবাদ