প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চূড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণায় কৌশলী আওয়ামী লীগ

সমীরণ রায় : সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রার্থীদের চ‚ড়ান্ত তালিকা ঘোষণায় কৌশল নিয়েছে আওয়ামী লীগ। এমনকি বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন না পেয়ে প্রভাবশালী নেতারাও আওয়ামী লীগে যোগ দিতে পারেন বলে দলটির কাছে তথ্য রয়েছে। তাই মোটা দাগে দুটি কৌশল নিয়েছে দলটি। প্রথমত প্রতিপক্ষ কে সেটি যেন প্রার্থী আগেভাগে না জানতে পারেন। দ্বিতীয়ত মহাজোটের মনোনয়ন বঞ্চিত হলে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়ে প্রার্থী হতে না পারে।

জানা গেছে, সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনীতিতে শুরু হয়েছে মেরুকরণ। এ মেরুকরণে দল বদলের হিড়িক পড়েছে। আওয়ামী লীগ থেকে বিএনপিতে বা বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগ। এরই প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের আসন সমীকরণের কারণেও প্রার্থীর তালিকা ঘোষণা বিলম্ব হচ্ছে। পাশাপাশি দেশের কোন আসনে কোন প্রার্থী জনপ্রিয়তায় এগিয়ে সে রিপোর্ট জোট নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাতে। তবে কোন আসনে দলটির প্রধান প্রতিপক্ষের প্রার্থী কে হচ্ছেন, তা জানার চেষ্টা করছেন শেখ হাসিনা। প্রতিপক্ষের প্রার্থী শক্তিশালী হলে কোনো কোনো আসনে জরিপের বাইরে গিয়ে ভিন্ন বিবেচনায় প্রার্থী দেওয়ার কথা ভাবছে দলটি।

আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতা বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচন প্রতিপক্ষকে ছাড়া ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন হবে না, এমনটা ধরে নিয়েই আওয়ামী লীগ প্রস্তুতি নিয়েছে। প্রতিদ্ব›িদ্বতাপূর্ণ এ নির্বাচনে যেসব আসনে প্রতিপক্ষ দলের প্রার্থী কে হচ্ছেন, তা নানাভাবে জানার চেষ্টা চলছে। এমন আসনের সংখ্যা প্রায় দেড় শতাধিক। এমনকি বিভিন্ন জরিপে প্রতিপক্ষের প্রার্থী কোন আসনে কে, তা জানারও চেষ্টা চলছে। প্রতিপক্ষের প্রার্থীর জনপ্রিয়তা ও অবস্থান বিবেচনায় দলীয় প্রার্থী শেষ পর্যন্ত পরিবর্তনের কথাও ভাবছে আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীর সংখ্যা চার হাজার ২৩ জন। এরমধ্যে ১৪ দল ও মহাজোটের জন্য প্রায় ৭০টি আসন ছেড়ে দিলে বাকি থাকে ২৩০টি আসন। ফলে প্রার্থীদের বিরাট অংশই থাকবেন মনোনয়নবঞ্চিত। বিভিন্ন আসন ও দলের মধ্যে রয়েছে কোন্দল। ফলে মনোনয়নবঞ্চিতদের মধ্যে কেউ কেউ দল ছাড়তে পারেন, এমন আশঙ্কাও রয়েছে। দল ছেড়ে অন্য দলে গিয়ে সংসদ সদস্য পদে প্রার্থী হওয়ার সুযোগ যেন না পান, এ কৌশলও রয়েছে দলটির।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগামী ২৫ বা ২৬ নভেম্বর দলীয় প্রার্থী তালিকা ঘোষনা হবে। কারণ ২৭ নভেম্বরের মধ্যে প্রার্থীর তালিকা ঘোষণা না করার বিকল্প নেই। আমরা যে তালিকা চূড়ান্ত করেছি, তাতেও কিছু শেষ মুহূর্তে অনেক পরিবর্তন আসছে।

তিনি আরও বলেন, বলেন, বিএনপি থেকে অনেকেই আওয়ামী লীগে যোগ দিতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন। আমাদের সভানেত্রীর সবুজ সংকেত পেলেই বিএনপির বিপুল নেতাকর্মী আওয়ামী লীগে যোগদান করবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ