প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এক দশকে মাতৃমৃত্যুর হার ৪০ শতাংশ কমেছে
দেশব্যাপী পরিবার কল্যাণ সেবা ও জনসচেতনতা সপ্তাহ শুরু

মোহাম্মদ রুবেল : দেশে গত এক দশকে মাতৃমৃত্যুর হার ৪০ শতাংশ কমেছে এবং ৫০ শতাংশ প্রসব হয়েছে দক্ষ সেবাদানকারীর সহায়তায়। সরকারের এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে প্রাতিষ্ঠানিক ডেলিভারি বৃদ্ধি করি, প্রসব পরবর্তী পরিবার পরিকল্পনা নিশ্চিত করি এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখেই শনিবার হতে দেশব্যাপী পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ শুরু হয়েছে। ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত এ প্রচার সপ্তাহ চলবে ।

এ লক্ষ্যকে সামনে রেখেই ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের উদ্যোগে এবং ইউএনএফপিএ’র আর্থিক সহায়তায় প্রতিবছর দু’বার দেশব্যাপী সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উদযাপন পালিত হচ্ছে।

জনগণনের প্রত্যাশা অনুযায়ী সেবা প্রধান, সেবা নিতে উদ্বুদ্ধ করা এবং প্রতিটি কর্মীকে সেবা দিতে আরো উৎসাহিত করা এবং নিরাপদ গর্ভধারণ প্রতিষ্ঠিত করাই মূললক্ষ্য। এ এরপ্রেক্ষিতেই দেশব্যাপী সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উদযাপনের অংশ হিসেবে বিভাগ ও জেলা পর্যায়ে অ্যাডভোকেসি ও প্রেস ব্রিফিং এবং উপজেলা পর্যায়ে অ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত হবে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা, এসব সভায় অংশ নেবেন। পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়।

জানা যায়, সপ্তাহব্যপী প্রতিদিন মাঠ পর্যায়ে প্রতিটি সেবা কেন্দ্রে পরিবার পরিকল্পনার বিশেষ ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে এবং গর্ভবতী মায়েদের চেকআপ ও ডেলিভারি সেবা দেয়া হবে। এ জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহ ইতোমধ্যে নিশ্চিত করা হয়েছে।

সম্প্রতি পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের যৌথ স্বাক্ষরে একটি নির্দেশনামূলক পত্র মাঠ পর্যায়ে পাঠানো হয়েছে, যাতে স্বাস্থ্য বিভাগের মাঠ কর্মীরা পরিবার পরিকল্পনার মাঠ কর্মীদের সঙ্গে একযোগে দায়িত্ব পালনে উদ্বুদ্ধ হন।

পরিবার পরিকল্পনপা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মতিউর রহমান আমাদের নতুন সময়কে বলেন, সেবা ও প্রচার সপ্তাহের প্রতিপাদ্যের ওপর মাঠপর্যায়ে কর্মসূচির ভিত্তিতে দিবসটি পালিত হচ্ছে। পরিবার পরিকল্পনা, মা ও শিশু স্বাস্থ্য, কিশোর-কিশোরীদের বয়ঃসন্ধিকালীন স্বাস্থ্য, প্রজনন স্বাস্থ্য, নিরাপদ মাতৃত্ব- এসব কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে বিগত ছয় দশক ধরে কাজ করে যাচ্ছে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর। এরই ধারাবাহিকতায় দেশের সব সক্ষম দম্পত্তিদের যদি পরিবার পরিকল্পনা, মা-শিশু-কৈশরকালীন স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্য ও সেবাপ্রপ্তির সহজ-সুযোগ সৃষ্টি করা যায় তবে কর্মসূচিতে বিদ্যমান চ্যালেঞ্জগুলো অনেকাংশ উত্তরণ সম্ভব।

– হুমায়ুন কবিরে খোকন, সোহেল রহমান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ