প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিএনপির হামলায় নিহত
ছেলের ছবি বুকে নিয়ে আজও কাঁদেন মা

খোকন আহম্মেদ হীরা, বরিশাল : ২০০১ সালে নির্বাচন পরবর্তী সময়ে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় বিএনপি-জামায়াতের চারদলীয় জোটের চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের নির্মম নির্যাতনে নিহত হয়েছিলেন ছাত্রলীগ নেতা সফিকুল ইসলাম বুলেট। দীর্ঘ ১৭ বছরেও নির্মম এ হত্যাকান্ডের বিচার পায়নি নিহতের পরিবার।

হত্যাকারীরা এখনও বীরদর্পে ঘোরাফেরা করায় কান্না থামেনি নিহত ছাত্রলীগ নেতার পরিবারে। আজও ছেলের ছবি বুকে নিয়ে কাঁদেন তার বৃদ্ধা মা মঞ্জু আরা বেগম (৬৫)। মৃত্যুর পূর্বে ছেলের হত্যাকারীদের বিচার দেখে যেতে চান বৃদ্ধা মঞ্জু আরা। নিহত সফিকুল ইসলাম বুলেট ছিলেন জেলার উত্তর জনপদের ঐতিহ্যবাহী সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক। ২৬ নভেম্বর তার (বুলেট) ১৭তম মৃত্যুবার্ষিকী।

গৌরনদী পৌর এলাকার হরিসেনা মহল্লার অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক প্রয়াত রহমতউল্লাহ খলিফার কনিষ্ঠ পুত্র মাসুম বিল্লাহ মানিক বলেন, আমার বড়ভাই সফিকুল ইসলাম বুলেট ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকার অপরাধে ২০০১ সালের ২০ নভেম্বর অসুস্থ্য বাবার জন্য ওষুধ ক্রয় করতে যাওয়ার পথে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় তৎকালীন স্থানীয় বিএনপি দলীয় সাংসদের ক্যাডাররা গৌরনদী বন্দরের খালপাড়ে ভাইয়াকে (বুলেট) ধরে নিয়ে নির্মম নির্যাতন চালায়। ইট দিয়ে পিটিয়ে ও খালের পানিতে চুবিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত ভেবে হামলাকারী সন্ত্রাসীরা ভাইয়াকে খালের পাড়ে ফেলে রেখে যায়।

খবর পেয়ে স্বজনরা মুমূর্ষু অবস্থায় বুলেটকে উদ্ধার করে প্রথমে গৌরনদী হাসপাতালে ও পরে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করেন। টানা ছয়দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে ওই বছরের ২৬ নভেম্বর সকালে মৃত্যুর কাছে হার মানেন ছাত্রলীগ নেতা বুলেট।

মানিক আরও জানান, এ ঘটনায় তৎকালীন সময়ে তার পিতা রহমতউল্লাাহ খলিফা বাদি হয়ে হামলাকালী যুবদল ও ছাত্রদলের ১৪ জনকে আসামি করে গৌরনদী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন। তৎকালীন স্থানীয় সংসদ সদস্য জহির উদ্দিন স্বপনের চাঁপের মুখে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সরদার ইউনুস আলী ঢিমেতালে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ফলে কিছুদিন যেতে না যেতেই মামলাটি খারিজ হয়ে যায়।

পরবর্তীতে তার পিতা তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরীর কাছে হত্যাকারীদের বিচার চেয়ে লিখিত আবেদন করেও ব্যর্থ হন। আজও তারা নিহত ছাত্রলীগ নেতা বুলেট হত্যার বিচার পাননি। নির্মম এ হত্যাকাণ্ডের বিচার না পেয়ে শোকে কাতর হয়ে গত দুইবছর পূর্বে রহমত উল্লাহ খলিফা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন।

ক্ষোভ প্রকাশ করে মাসুম বিল্লাহ মানিক বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় অকালে বড় ভাইকে হারিয়েছি। ভাইয়ের হত্যাকারীদের বিচার না পেয়ে বাবাকেও হারিয়ে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে চরম আর্থিক দৈন্যতার মধ্যে পরে একটি সরকারি চাকরির জন্য হন্য হয়ে নেতাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ব্যর্থ হয়েছি। গত দুইবছর পূর্বে প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব তহবিল থেকে আর্থিক অনুদানের জন্য আমাদের কাছ থেকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা আবেদন নেয়া সত্ত্বেও তা আর আলোর মুখ দেখেনি।

গৌরনদী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুবায়ের ইসলাম সান্টু ভূঁইয়া জানান, প্রকাশ্যে বিএনপির সন্ত্রাসীদের নির্মম নির্যাতনে নিহত ছাত্রলীগ নেতা সফিকুল ইসলাম বুলেটের ১৭তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও উপজেলা, পৌর এবং সরকারী গৌরনদী কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে আগামী ২৬ নভেম্বর সকালে শহীদ বুলেটের কবর জিয়ারত, পুস্পমাল্য অর্পণ, শোক র‌্যালি, স্মরণ সভা ও দোয়া-মিলাদের আয়োজন করা হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ